বিজ্ঞাপন

৬ মাস পিছিয়েছে পদ্মাসেতু, চালু হবে আগামী বছরের ডিসেম্বরে

August 29, 2020 | 12:05 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: সেপ্টেম্বর থেকে জোরেসোরে আবার শুরু হবে পদ্মাসেতুর কাজ। চলতি বছরের শুরু থেকে কাজে গতি আনা যায়নি। প্রথমে করোনাভাইরাস ও পরে বন্যা। এই দুটি বাঁধার মুখে থেমে আছে শেষ ১০টি স্প্যান বসানোর কাজ। তবে প্রকল্প কর্মকর্তারা আশা করছেন মধ্য সেপ্টেম্বর থেকে স্প্যান বসানো শুরু হয়ে শেষ স্প্যানটি ডিসেম্বরে বসিয়ে দেবেন। আর তখন দেখা যাবে পুরো ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার লম্বা পদ্মাসেতু।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার (২৮ আগস্ট) পদ্মাসেতুর সবশেষ অগ্রগতি জানিয়ে চায়না মেজর ব্রিজের একজন প্রকৌশলী জানান, সামনের চার মাসে সবচেয়ে বেশি কাজ দেখা যাবে। যেটুকু পিছিয়ে পড়েছে তা সেই সময়ে এগিয়ে নিতে পারবেন তারা। আর আগামী বছরের ডিসেম্বরে সব কাজ শেষ হয়ে যাবে। তখন গাড়ি পার হবে পদ্মাসেতু দিয়ে।

মূল সেতুর এমন অগ্রগতির কথা জানা গেলেও পিছিয়ে নদী শাসন কাজ। নদীর স্রোতধারা স্বাভাবিক রাখা এবং ভাঙন রোধে চীনের আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনোহাইড্রো করপোরেশন কাজ করছে। তাদের কাজ পিছিয়ে আছে। নদী শাসনের পুরো কাজ শেষ হতে ২০২২ সাল পর্যন্ত লাগবে। তবে এর আগেই সেতু চালু হবে বলে জানিয়েছে সেতু কতৃপক্ষ।

বিজ্ঞাপন

সরকারের ঘোষণা রয়েছে আগামী বছর জুনে সেতু শেষ করা। কিন্তু বাস্তব অগ্রগতি ও প্রতিকূলতার মুখোমুখি হওয়ার পর সেতু বিভাগ এখন বলছে, এটা ডিসেম্বর পযন্ত বাড়ানো হবে।

পদ্মাসেতুর নতুন এই ডেড লাইন জানিয়ে দেবেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তবে এখনো সরকারিভাবে এই ডেড লাইন প্রকাশ করা হচ্ছে না।

বিজ্ঞাপন

প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম জানান, মূল সেতুর স্প্যানের কাজের মধ্যে বাকি রয়েছে ১০টি বসানো। আর সড়কপথের স্লাব শরিয়তপুর অংশ থেকে মুন্সিগঞ্জের দিকে এগিয়ে আসছে।

করোনার কারণে গতি কম ছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, কাজ কখনো বন্ধ থাকেনি। তবে বন্যায় যে ক্ষতি হয়েছে তা শিগগিরই কাটিয়ে ওঠা যাবে। এরই মধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

প্রকল্প সূত্র জানায়, মূল সেতুর কাজের অগ্রগতি এখন প্রায় ৯০ শতাংশ। আর নদী শাসন কাজের অগ্রগতি ৭৩ শতাংশ। পুরো প্রকল্পের সাবিক অগ্রগতি ৮০ দশমিক ৫০ শতাংশ।

সারাবাংলা/এসএ/এমআই

বিজ্ঞাপন

Tags: , ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন