বিজ্ঞাপন

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ২ হলে তল্লাশি

August 29, 2020 | 9:08 pm

চবি করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকার পরও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) অন্য কেউ অবৈধভাবে অবস্থান করছে কি না- এমন অভিযোগে দুটি আবাসিক হলে তল্লাশি চালিয়েছে প্রক্টরিয়াল বডি। যদিও এ সময় কাউকে পাওয়া যায়নি। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, হলের রুমগুলো ঠিকঠাক আছে।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার (২৮ আগস্ট) রাত সাড়ে দশটার দিকে এই তল্লাশি চালানো হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. রবিউল হাসান ভূঁইঞা সারাবাংলাকে তথ্যটা নিশ্চিত করেছেন। তল্লাশি চালানো আবাসিক হল দুটি হলো- শাহ আমানত হল ও শাহ জালাল হল।

প্রক্টর রবিউল বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকার কারণে বিভিন্ন সময় শিক্ষার্থীরা একাডেমিক পেপার, সার্টিফিকেট নেওয়ার জন্য হলের প্রোভোস্টদের অনুমতি নিয়ে ঢুকছে। ফলে তাদের সিলগালা ভেঙে ঢুকতে হয়েছে। এগুলো আমরা চেক করেছি এবং অবৈধভাবে অন্য কেউ আছে কি না আমরা তল্লাশি করছি। কাউকে পাওয়া যায়নি। হলের রুমগুলোও সব ঠিক আছে। যেগুলোতে সিলগালা নাই সেগুলোতে সিলগালা করতে হলের কর্মচারীদের বলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এর আগে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে ১৬ মার্চ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেট সভায় ১৮ মার্চ থেকে ২৩ দিনের জন্য ছুটি ঘোষণা করা হয়। তারপর ১২এপ্রিল করোনা বিশ্বব্যাপী মহামারি আকার ধারণ করায় উদ্ভুত পরিস্থিতিতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

সারাবাংলা/সিসি

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন