বিজ্ঞাপন

ফেসবুকে বন্ধুত্বের পর ডেকে এনে জিম্মি, ৯৯৯ নম্বরে ফোন দিয়ে রক্ষা

September 2, 2020 | 10:08 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: পুলিশের হটলাইন নম্বরে (৯৯৯) ফোন পেয়ে এক যুবককে জিম্মি অবস্থা থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এসময় তাকে আটকে রাখার অভিযোগে তিন দোকান কর্মচারীকে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বন্ধুত্বের সূত্র ধরে ডেকে এনে ওই যুবককে জিম্মি করে মুক্তিপণ দাবি করা হয়েছিল।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (১ সেপ্টেম্বর) রাতে নগরীর কোতোয়ালি থানার তামাকমুণ্ডি লেন থেকে ওই যুবককে উদ্ধারের পাশাপাশি তিন জনকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার তিনজন হলেন— মো. সাহেদ (১৮), গোলাম মোস্তফা (২৪) ও মো. রুবেল (৩৫)। তারা নগরীর তামাকমুণ্ডি লেইন, জলসা মার্কেট ও রিয়াজউদ্দিন বাজারের বিভিন্ন দোকানের কর্মচারী বলে জানিয়েছে পুলিশ।

জিম্মি অবস্থা থেকে উদ্ধার পাওয়া মো. রুবেলের বাড়ি চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার ভুজপুর এলাকায়। তিনি সীতাকুণ্ড উপজেলার ভাটিয়ারিতে একটি স্টিল মিলে বাবুর্চির কাজ করেন বলে পুলিশ জানিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন সারাবাংলাকে জানান, রুবেলের সঙ্গে ফেসবুকে সাহেদের পরিচয় হয়। নিয়মিত কথাবার্তা হতো। সাহেদের আমন্ত্রণে রুবেল মঙ্গলবার বিকেলে রিয়াজউদ্দিন বাজারে আসেন। সাহেদের পাশাপাশি তার বন্ধু গোলাম মোস্তফা ও রুবেলের সঙ্গে দেখা হয়।

‘তিন জন রুবেলকে তামাকমুণ্ডি লেনের একটি মার্কেটের সপ্তম তলায় নিয়ে যান। সেখানে একটি কক্ষে তাকে আটকে রেখে মারধর শুরু করেন। রুবেলের কাছ থাকা এক হাজার ৬০০ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে মুক্তি পেতে হলে আরও ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। এরপর ছুরিকাঘাতের ভয় দেখিয়ে তাকে ভবনের ছাদে তোলার চেষ্টা করেন। রুবেল কৌশলে সিঁড়ি দিয়ে নেমে পালিয়ে যাওয়ার সময় ওই তিন জন ছিনতাইকারী বলে চিৎকার করতে থাকে। তখন জনতা তাকে ধরে মারধর করে এবং তামাকমুণ্ডি লেন বণিক সমিতির কার্যালয়ে নিয়ে যায়,’— বলেন ওসি মোহাম্মদ মহসীন।

এসময় রুবেল ৯৯৯ নম্বরে ফোন করলে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে এবং তিন জনকে একটি ছোরাসহ গ্রেফতার করে বলেও জানান ওসি।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/আরডি/টিআর

Tags: , , , , ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন