বিজ্ঞাপন

ফরিদপুরের সিনিয়র ম্যাজিস্ট্রেটকে হাইকোর্টে তলব

September 16, 2020 | 6:31 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ফরিদপুর জেলার নগরকান্দায় এক স্কুলছাত্র খুনের মামলায় ১৬৪ ধারায় তিন আসামির হুবহু একই রকমের জবানবন্দি গ্রহণ সংক্রান্ত বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে ফরিদপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাইনুল ইসলামকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। আগামী ৮ অক্টোবর তাকে আদালতে হাজির হয়ে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে আসামিদের জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল ও তার সঙ্গে ছিলেন অ্যাডভোকেট নুসরাত ইয়াসমিন।

মামলার শুনানিতে ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল আদালতকে বলেন, ‘২০১৮ সালের ২৮ জুন একদিনের তিন ঘণ্টার মধ্যেই ফরিদপুরের সিনিয়র জুডিশিয়্লা ম্যাজিস্ট্রেট আসামিদের ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি গ্রহণ করেন। তিনজন আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি হুবহু একইরকম। যা আইন অনুযায়ী হয়নি।’

বিজ্ঞাপন

বিষয়টি আদালত আমলে নিয়ে বিষয়ে ব্যাখ্যার জন্য ফরিদপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. মাইনুল ইসলামকে তলব করেন। একইসঙ্গে আসামিদের আপিল শুনানির বিষয়টি গ্রহণ করেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৮ সালের ৭ জুন রাতে অপহরণের পর গলায় গামছা প্যাঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে স্কুলছাত্র কিশোর অন্তরকে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার দুই আসামি আজিজুল শেখ ও আশরাফ শেখ ফরিদপুর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে জামিন আবেদন করলে আদালত ওই আবেদন শুনানি নিয়ে নামমঞ্জুর করে আদেশ দেন।

বিজ্ঞাপন

ট্রাইব্যুনালের এই আদেশের বিরুদ্ধে দুই আসামি হাইকোর্টে জামিন চেয়ে আপিল আবেদন করেন। আজ ওই আপিল শুনানিতে তিনজন জনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি একইরকম হওয়ার বিষয়টি আদালতের নজরে আনা হয়। পরে আদালত তাকে তলব করে আদেশ দেন।

উল্লেখ্য, বর্তমানে অন্তর হত্যা মামলাটি ফরিদুপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বিচারাধীন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এজেডকে/এমও

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন