বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা সিরিজ: লঙ্কান বোর্ডের ‘তোড়জোড়’

September 16, 2020 | 8:36 pm

স্পোর্টস ডেস্ক

শ্রীলঙ্কা সিরিজকে সামনে রেখে বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের অনুশীলন যখন আরও বেগবান হয়ে উঠছিল তখনই 'বিনা মেঘে বজ্রপাত'! করোনাভাইরাস ইস্যুতে দ্বীপ দেশটির ক্রিকেট বোর্ডের নানান জটিল শর্তের কারণে অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে সিরিজটি। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) মনে করছে লঙ্কান বোর্ডের শর্ত এতোটাই কঠিন যে সেসব মেনে সিরিজ খেলা 'সম্ভব নয়'। শ্রীলঙ্কাকে বিষয়টি জানিয়েও দিয়েছে বিসিবি। এরপরই হয়তো নড়েচড়ে বসেছে শ্রীলঙ্কান বোর্ড! দেশটির সংবাদমাধ্যমগুলোতে বলা হচ্ছে, শর্ত শিথিল করে বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজটি আয়োজনের তোড়জোড় শুরু করেছে শ্রীলঙ্কা বোর্ড।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ দলের সফরের শর্ত শিথিল করতে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বরাবর আবেদন করেছে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড। সিরিজটি নিশ্চিতে সফরকারী বাংলাদেশ দলকে বিশেষ সুবিধা দিতে আবেদন করেছে লঙ্কান বোর্ড।

দেশটির গণমাধ্যমগুলোতে বলা হচ্ছে, বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) ক্রীড়া মন্ত্রী নামাল রাজাকাপকসে ও দায়িত্বপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান শাম্মি সিলভা। সেখানে বাংলাদেশ দলের কোয়ারেন্টাইন ১৪ দিন থেকে ৭ দিনে নামিয়ে আনা এবং সফর সদস্য বাড়ানোর আবেদন তুলেছেন শাম্মি।

বিজ্ঞাপন

জানা যায়, শ্রীলঙ্কান বোর্ড যে শর্ত জুড়ে দিয়েছিল তাতে বাংলাদেশের বড় আপত্তি ছিল কোয়ারেন্টাইন ও সফর সদস্য নিয়ে। সফরকে সামনে রেখে অনেকদিন ধরেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনুশীলন করে যাচ্ছেন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা। ইতোমধ্যেই একবার করোনা পরীক্ষা করানো হয়েছে। সফরের আগে করোনা পরীক্ষা করার কথা রয়েছে আরও তিনবার। বিসিবির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, দল ঘোষণার পর নির্দিষ্ট হোটেলে উঠে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে অনুশীলন করবেন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা। কিন্তু এতো কিছুর পরও শ্রীলঙ্কান বোর্ডের পক্ষ থেকে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার কথা বলা হয়েছে। এই ১৪ দিনই থাকতে হবে রুমবন্দি। অর্থাৎ অনুশীলনের কোনো সুবিধা পাবে না বাংলাদেশ।

এদিকে, সফর সদস্য সংখ্যাও কমানোর কথা বলা হয়েছে। সফরকারী দেশ কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে সফরে গিয়ে সিরিজের আগে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে এটা ক্রিকেটে চিরাচরিত নিয়ম। স্বাগতিক দেশই তার ব্যবস্থা করে দিয়ে থাকে। কিন্তু শ্রীলঙ্কা আগেই সাফ জানিয়ে দিয়েছে করোনাকালে প্রস্তুতি ম্যাচের জন্য দল দিতে পারবে না তারা। উপায়ন্তু না দেখে বিসিবি তাদের এইচপি দলকে শ্রীলঙ্কা নেওয়ার পরিকল্পনা করছিল। যাতে সেখানে গিয়ে এইচপি ক্রিকেটারদের সঙ্গে প্রস্তুতি ম্যাচ আয়োজন করা যায়। বাংলাদেশ এগুচ্ছিল সেই পরিকল্পনাতেই। কিন্তু শ্রীলঙ্কার পক্ষ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়, সফরের ৩০ জনের বেশি যেতে পারবে না। অর্থাৎ এইচপি দলকে নেওয়ার সুযোগ পাবে না বাংলাদেশ।

বিজ্ঞাপন

থ্রোয়ার দেওয়ার ব্যাপারেও অপারোগতা জানিয়েছে শ্রীলঙ্কান বোর্ড। বিসিবি দেশ থেকে থ্রোয়ার নিতে চাইলে তাতেও আপত্তি দ্বীপ দেশটির। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেছিলেন, এতো প্রতিবন্ধকতার মধ্যে আইসিসির টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের মতো একটা গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্ট খেলা সম্ভব নয়। এতো কঠিন শর্ত হলে সফর না করার বিষয়টি শ্রীলঙ্কাকে সাফ জানিয়ে দেয় বিসিবি। তারপরই হয়তো টনক নড়ল শ্রীলঙ্কান বোর্ডের!

সারাবাংলা/এসএইচএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন