বিজ্ঞাপন

দখল হওয়া রাস্তা-খাল উদ্ধারে জনগণের সহায়তা চান মেয়র আতিকুল

September 16, 2020 | 11:14 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেছেন, খাল পুনরুদ্ধার করে উন্নয়ন করা হলে জলাবদ্ধতা নিরসন হবে। এই খালগুলো জনগণকে নিয়ে আমরা উদ্ধার করবো। জনগণ পাশে থাকলে খাল উদ্ধার হবেই।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) উত্তরখানের বিভিন্ন ওয়ার্ড পরিদর্শনকালে এসব কথা বলেন আতিকুল ইসলাম। এছাড়াও ডিএনসিসির ম্যাপিং অনুযায়ী রাস্তার দুই পাশে যার স্থাপনাই থাকুক না কেন, সেগুলো ভেঙে রাস্তা করার কথাও জানান মেয়র।

আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘নতুন ১৮টি ওয়ার্ডের উন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্প্রতি ৪ হাজার ২৫ কোটি টাকার প্রকল্প পাস করে দিয়েছেন। এখানকার রাস্তাগুলো চওড়া হবে। ১৩টি খাল আছে, এগুলোর অনেক জায়গা দখল হয়ে আছে। এই ১৩টি খাল পুনরুদ্ধার করে উন্নয়ন করা হলে জলাবদ্ধতা নিরসন হবে। আমরা খাল উন্নয়নের যে ডিজাইন করেছি, সেখানে খালের দুই পাশে হাঁটার রাস্তা থাকবে, সেখানে গাছ লাগানো হবে, সাইকেল লেন থাকবে। এটি ব্যক্তিগত কারও জন্য নয় বরং জনগণের জন্য।’

বিজ্ঞাপন

খাল দখলদারদের উদ্দেশ্যে আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘জনগণের হাতের চেয়ে লম্বা হাত আর কারও নেই। আপনাদের (খাল দখলদার) হাত যতই লম্বা হোক না কেন, জনগণের হাতের চেয়ে লম্বা নয়। রাস্তা প্রশস্ত করতে গেলে অনেক স্থাপনা ভাঙা পড়তে পারে। ডিএনসিসির ম্যাপিং অনুযায়ী রাস্তার দুই পাশে যার স্থাপনাই থাকুক না কেন, সেগুলো ভেঙে আমাদের রাস্তা করতে হবে। দখল হওয়া রাস্তা, খাল উদ্ধারে তাই জনগণের সহায়তা চাই।’

নতুন ওয়ার্ডগুলোর হোল্ডিং ট্যাক্স আদায় বিষয়ে ডিএনসিসি মেয়র বলেন, ‘এই এলাকার জন্য হোল্ডিং ট্যাক্সের রেট চার্ট করেছি, তবে কোনো ঘরবাড়ি থেকে এখনই ট্যাক্স নেবো না। রাস্তা, ফুটপাত ইত্যাদি নির্মাণ করার পরে ট্যাক্স নেবো। কিন্তু বাণিজ্যিক প্লট, কারখানা ইত্যাদি থেকে অবিলম্বে ট্যাক্স নেওয়া হবে। ব্যবসা করবেন, ট্যাক্স দেবেন না—এটা হতে পারে না।’ খাস জমিতে কমিউনিটি সেন্টার, খেলার মাঠ, পার্ক, মার্কেট নির্মাণ করা হবে। টেকসই উন্নয়নের জন্য আগে ড্রেন তৈরি করে তারপরে রাস্তা নির্মাণ করবো বলেও উল্লেখ করেন আতিকুল ইসলাম।

বিজ্ঞাপন

এদিন রাজধানীর উত্তরখানের বিভিন্ন ওয়ার্ড পরিদর্শন করেন আতিকুল ইসলাম। সকাল ১১টায় ৪৫ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তরখান কলেজিয়েট স্কুল মাঠ, দুপুর সাড়ে ১২টায় ৪৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর অফিস এবং দুপুর আড়াইটায় ৪৪ নম্বর ওয়ার্ডের বাথাইড় মাঠে তিনটি পৃথক জনসভায় অংশ নেন। এসময় তিনি উত্তরখানের বিভিন্ন এলাকায় সম্প্রতি বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন।

মেয়রের পরিদর্শনকালে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সেলিম রেজা, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোমিনুর রহমান মামুন ও প্রধান প্রকোশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আমিরুল ইসলাম। এছাড়াও ৪৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জয়নুল আবেদীন, ৪৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর জাইদুল ইসলাম মোল্লা ও ৪৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শফিকুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসবি/এমও

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন