বিজ্ঞাপন

‘গোপন বৈঠক আর ষড়যন্ত্র করে লাভ নেই, জনগণের মন জয় করুন’

September 24, 2020 | 1:46 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বিএনপি নেতারা বিদেশে বসে সরকার পতনের জন্য ষড়যন্ত্র করে, আবার দেশে নির্বাচনে অংশগ্রহণের কথা বলে— এটা তাদের দ্বিচারিতা এবং ষড়যন্ত্রের রাজনীতি বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, বিএনপি নেতারা কখনও জেদ্দা, কখনও আবুধাবি আবার কখনও লন্ডনে বসে গোপন বৈঠক করেন। সব খবরই সরকারের কাছে আছে। গোপন বৈঠক আর ষড়যন্ত্র করে লাভ নেই, জনগণের মন জয় করুন।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকালে ক্রসবর্ডার রোড নেটওয়ার্ক উন্নয়ন প্রকল্পের অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সভায় যুক্ত হন।

বিএনপি এবং সাম্প্রদায়িক অপশক্তি একটি বিদেশি সংস্থার সঙ্গে গোপনে বৈঠক করে সরকার পতনের ষড়যন্ত্র করছে— গণমাধ্যমে এমন সংবাদ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘এটিই বিএনপির রাজনৈতিক দর্শন। বিএনপি নেতারা কখনও জেদ্দা, কখনও আবুধাবি, আবার কখনও লন্ডনে বসে গোপন বৈঠক করছেন। সব খবরই সরকারের কাছে আছে।’ ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সরকার পরিবর্তন করতে চাইলে জনমানুষের কাছে আসুন, বিদেশি শক্তি বা কোনো সংস্থার কাছে নয়।’

বিজ্ঞাপন

করোনার ভ্যাকসিন আসছে ভেবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে অনেকেরই গা-ছাড়া ভাব দেখা দিয়েছে। অনেকেই অবহেলা করছেন এবং মাস্ক পরছেন না। এমন উদাসীনতা প্রসঙ্গে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘কার্যকর ও সর্বজন গ্রাহ্য ভ্যাকসিন কবে আসবে তা এখনও সুনিশ্চিত নয়। সেজন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা এবং মাস্ক পরিধানই সবচেয়ে বড় প্রতিষেধক। করোনার সংক্রমণ রোধে সচেতনাই হচ্ছে উত্তম ভ্যাকসিন।’

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘প্রায় সাতশ মিটার দীর্ঘ কালনা সেতুটি সড়ক যোগাযোগে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মধুমতি নদীর দু-পাড়ের মাঝে সেতুবন্ধ তৈরি করা ছাড়াও কালনা সেতুটি পদ্মাসেতুর সংযোগ সড়কে সংযুক্ত। সেজন্য এর সুফল পেতে হলে নির্মাণ কাজ শেষ করা জরুরি।’ কালনা সেতুর কাজ ৩৫ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে জানিয়ে তিনি পদ্মাসেতুর কাজের সঙ্গে সমন্বয় রেখে সেতুটির নির্মাণ কাজ আরও দ্রুত এগিয়ে নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন।

বিজ্ঞাপন

এ সময় ভার্চুয়াল মিটিংয়ে উপস্থিত ছিলেন সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব, সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী, প্রকল্প পরিচালকসহ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

সারাবাংলা/এনআর/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন