বিজ্ঞাপন

নাশকতার ৮ মামলায় বিএনপির ১৬ নেতাকর্মী কারাগারে

September 24, 2020 | 7:22 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগমুহূর্তে দায়ের হওয়া নাশকতার আট মামলায় বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠনের ১৬ নেতাকর্মীকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। এর প্রতিবাদে আদালত প্রাঙ্গনে তাৎক্ষণিক সমাবেশ করেছে বিএনপি।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুল আলম তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

চট্টগ্রাম মহানগর পিপি ফখরুদ্দিন চৌধুরী সারাবাংলাকে বলেন, ‘বায়েজিদ বোস্তামি থানায় নাশকতার অভিযোগে দায়ের হওয়া আট মামলায় ২৬ আসামি হাইকোর্টের দেওয়া জামিনে ছিলেন। জামিনের মেয়াদ শেষের পর হাইকোর্টের আদেশ অনুযায়ী তারা নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন। আদালত ১৬ জনকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন। বয়স ও শারীরিক সমস্যা বিবেচনায় ১০ জনকে জামিন দিয়েছেন।’

বিজ্ঞাপন

কারাগারে যাওয়া নেতাকর্মীদের মধ্যে আছেন- নগর বিএনপির সহ-দফতর সম্পাদক মো. ইদ্রিস আলী, বিএনপি নেতা ডা. ফরহাদ হোসেন, রুহুল আমিন, হাসান সওদাগর, মনজুরুল আলম, নগর যুবদলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মঞ্জুর হোসেন, এরশাদ হোসেন, সহ সাধারণ সম্পাদক জাফর আহমেদ খোকন, সহ-প্রচার সম্পাদক জিল্লুর রহমান জুয়েল, সহ-সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বাবু, পাঁচলাইশ থানা যুবদলের যুগ্ম-আহ্বায়ক মনির হোসেন ভূট্টো, হুমায়ুন কবীর, সদস্য মোহাম্মদ নাছির, ছাত্রদল নেতা ফখরুল ইসলাম শাহীন, স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা আকবর হোসেন এবং খাজা স্বপন।

একই সময়ে দায়ের হওয়া নাশকতার বিভিন্ন মামলায় গত তিন সপ্তাহে বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের মোট ৬৬ নেতাকর্মীকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এদিকে ১৬ নেতাকর্মীকে কারাগারে পাঠানোর আদেশের পর আদালত প্রাঙ্গনে তাৎক্ষণিক সমাবেশ করে নগর বিএনপি। এতে দলটির নগর কমিটির সভাপতি শাহাদাত হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর, সহ-সভাপতি আবদুস সাত্তার, সাত্তার সরোয়ার, যুগ্ম-সম্পাদক ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, মনজুর আলম মনজু, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম, হকার সম্পাদক আবদুল বাতেন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, সহ-শ্রম সম্পাদক আবু মুছা, সহ-প্রকাশনা সম্পাদক আবদুল হাই বক্তৃতা করেন।

শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘সিটি করপোরেশনে নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকারের নির্দেশনায় বিএনপির নেতাকর্মীদের কারাগারে পাঠানো হচ্ছে। বিএনপির নেতাকর্মীদের আতঙ্কিত করে রাতে ভোট করার কৌশল নিয়েছে সরকার।’

বিজ্ঞাপন

আবুল হাশেম বক্কর বলেন, ‘মামলা, জেল-জুলুম বন্ধ করতে হবে। আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। সরকারকে কঠোর জবাব দেওয়া হবে।’

সারাবাংলা/আরডি/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন