বিজ্ঞাপন

বার্ষিক পরীক্ষা নয়, মূল্যায়নের গাইডলাইন বানাবে সমন্বয় কমিটি

September 24, 2020 | 10:05 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: জেএসসি, জেডেসি'র পর এবার বার্ষিক পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্তও বাতিল হলো। করোনাভাইরাস মহামারিতে বন্ধ থাকা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো এখন নিজ উদ্যোগে অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করে নবম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ করবে। আর এ কাজে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর সুবিধার জন্য একটি গাইড লাইন তৈরি করে দেবে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব- কমিটি।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির বৈঠকে এমনই সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন কমিটি সভাপতি ও ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক। তিনি জানিয়েছেন, ডিসেম্বর পর্যন্ত সিলেবাসের যেটুকু পড়ানো সম্ভব হবে, সে অনুযায়ী নিজ নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করবে।

কোন প্রক্রিয়ায় এই মূল্যায়ন করা হবে সে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সে জন্য আমরা একটা গাইডলাইন তৈরি করে দেব। পরীক্ষা উন্নয়ন ইউনিটের মাধ্যমে গাইডলাইন তৈরি করা হবে। সেটা অনুসরণ করেই শিক্ষার্থীদের পরবর্তী ক্লাসে উত্তীর্ণ করা হবে। এরই মধ্যে গাইডলাইনের একটি প্রাথমিক প্রিন্সিপাল তৈরি করা হয়েছে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘চলতি শিক্ষার্বষের যতটুকু শ্রেণি কার্যক্রম চলেছে এবং এই দীর্ঘ বন্ধের মধ্যে অনলাইন, টেলিভিশনসহ ডিজিটাল মাধ্যমে যতটুকু করা গেছে সেসব পর্যালোচনা করে এবং ডিসেম্বর পর্যন্ত যতটুকু সময় পাওয়া যাবে এর ভিত্তিতেই মূল্যায়ন করা হবে। আর যা বাদ থেকে যাবে তা পরের ক্লাসে লিংকআপ হবে। যখন নবম শ্রেণিতে ক্লাস শুরু হবে তখন অষ্টম শ্রেণির যে অংশ পড়ানোর বেশি প্রয়োজন সেটুকু যেন টেকওভার করতে পারে। নবম শ্রেণির শিক্ষকদের সে গাইডলাইন দেওয়া হবে।’

বিজ্ঞাপন

যদি বিদ্যালয় না খোলা যায় তবে কোন পদ্ধতিতে মূল্যায়ন হবে, সে প্রসঙ্গে অধ্যাপক জিয়াউল হক বলেন, ‘যদি ক্লাসরুমে সম্ভব হয় তবে সেখানেই হবে। যদি অনলাইনে করতে হয় তবে সে পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। আর যদি কোনোটিই সম্ভব না হয় তবে শিক্ষার্থীদের অ্যাসেসমেন্ট অনুযায়ী শিক্ষকরা মূল্যায়ন করবেন। মূল্যায়নের সুনির্দিষ্ট পদ্ধতি পরিস্থিতির ওপরে নির্ভর করবে।’

নবম ও দশমের সিলেবাস একটিই উল্লেখ করে বলেন, ‘এর একাংশ নবম ও দশম শ্রেণিতে আরেকাংশ পড়ানো হয়। নবম শ্রেনিতে যা বাদ যাবে তা দশম শ্রেণিতে পড়ানো হবে। নবম শ্রেণিতেও নিজ নিজ পদ্ধতিতে প্রতিষ্ঠানগুলো উত্তীর্ণ করবে।’

বিজ্ঞাপন

আর ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির ক্ষেত্রে মাধ্যমিক উচ্চশিক্ষা অধিদফতর সিদ্ধান্ত নেবে।

তবে একাদশ শ্রেণির মূল্যায়নের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘তারাও নিজ নিজ পদ্ধতিতে মূল্যায়ন করে পরবর্তী শ্রেণিতে শিক্ষার্থীদের উত্তীর্ণ করবে।’

বিজ্ঞাপন

উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারিতে এসএসসি পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হলেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হলে স্থগিত হয় এইচএসসি পরীক্ষাসহ সব ধরনের পরীক্ষা। এই পরিস্থিতিতে শিক্ষাবর্ষ শেষ করে কীভাবে শিক্ষার্থীদের পরের ক্লাসে উত্তীর্ণ করা যায় সে করনীয় ঠিক করতেই দেশের সকল শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যানদের নিয়ে বৈঠকে বসে আন্তঃশিক্ষা শিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব- কমিটি।

সারবাংলা/জেআর/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন