বিজ্ঞাপন

এমসি কলেজে গণধর্ষণের প্রতিবাদে মেয়রের নেতৃত্বে পদযাত্রা

September 27, 2020 | 7:06 pm

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

সিলেট: সিলেটের এমসি কলেজে বেড়ানোর সময় স্বামীকে বেঁধে তার স্ত্রীকে ছাত্রাবাসে নিয়ে গণধর্ষণের ঘটনায় সিলেটের সর্বত্রই ক্ষোভ বিরাজ করছে। ঘটনার প্রতিবাদে রোববার (২৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সিলেটে পদযাত্রা করেছেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীসহ সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলররা।

বিজ্ঞাপন

এ সময় নেতারা পুলিশ কমিশনারের কাছে ধর্ষকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, ‘নগরবাসীকে দুর্বৃত্তদের হাত থেকে রক্ষায় আমাদের আরও সচেষ্ট হতে হবে। এই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের শুধুমাত্র গ্রেফতার করলেই হবে না, তাদের দৃষ্টান্তমূলক সাজা দিতে হবে। পাশাপাশি এদেরকে যারা আশ্রয়-প্রশয় দেয় তাদের মূলও উৎপাটন করতে হবে। তাদের চিহ্নত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। এই ব্যাপারে আমরা সমস্ত ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে জনসচেতনা গড়ে তুলবো।’

বিজ্ঞাপন

এদিকে, ধর্ষকদের গ্রেফতার দাবিতে এমসি কলেজের ফটকে সিলেটের ছাত্রলীগের ব্যানারে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন হয়েছে। এ সময় ছাত্রলীগের নেতারা ধর্ষকদের আশ্রয়দাতাদের বিচার দাবি করেছে।

এমসি কলেজে গণধর্ষণ: সাইফুর-লস্কর গ্রেফতার

বিজ্ঞাপন

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের এডিসি (মিডিয়া) জ্যোর্তিময় সরকার বলেন, ‘ধর্ষণের ঘটনায় প্রধান আসামি সাইফুর রহমানকে সুনাগঞ্জের ছাতক ফেরিঘাট এলাকা থেকে ভোররাতে গ্রেফতার করে পুলিশ। একইসময় হবিগঞ্জের মনতলা থেকে গ্রেফতার করা হয় অপর আসামি অর্জুন লস্করকে। তারা দেশ ছেড়ে পালানোর চেষ্টা করেছিলো। দুই আসামিকেই সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারের পর তাদের সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়।’

জ্যোর্তিময় সরকার আরও বলেন, ‘ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতারকৃত আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড আবেদন করা হবে। এছাড়া পলাতক থাকা আসামিরা যাতে পালিয়ে যেতে না পারে সে কারণে সীমান্তে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।’

বিজ্ঞাপন

এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে ‘গণধর্ষণ’

উল্লেখ্য, শুক্রবার সন্ধ্যায় এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে স্ত্রীকে নিয়ে বেড়াতে যায় তার স্বামী। রাত ৯টার দিকে ছাত্রলীগের কয়েকজন কর্মী স্বামীকে মারধর করে স্ত্রীকে ছিনিয়ে ছাত্রীনিবাসে চলে যায়। পরে স্বামী পিছু পিছু গেলে তাকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে ৫-৬ জন গণধর্ষণ করে। ওই গৃহবধূ সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ভিকটিমের পরিবার জানিয়েছে, ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী এই ঘটনায় সম্পৃক্ত।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এমও

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন