বিজ্ঞাপন

স্বাস্থ্যবিধি মেনেই হোক শারদীয় উৎসব  

October 23, 2020 | 6:47 pm

সাইদুল করিম মিন্টু 

শারদীয় পূজা করি, হাত ধুয়ে মাস্ক পরি, আয় আয় সহচারী...এটাই হোক এবারের দুর্গাপূজার প্রধান বার্তা। কারণ করোনাভাইরাসের মাত্রা এখনো দেশে স্বাভাবিক পর্যায়ে আসেনি। তবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এমনকি স্বাস্থ্যবিধি মেনে অর্থনীতির গতি সচল করার জন্য ব্যবসা-বাণিজ্যসহ সব ধরনের প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এদিকে মহামারি করোনাভাইরাসের ভেতরেই হিন্দুধর্মাবলম্বীদের প্রধান উৎসব দুর্গাপূজা আমাদের মাঝে হাজির হয়েছে। তবে এই বছরে দুর্গাপূজা অন্য বছরের চেয়ে ব্যতিক্রমভাবে পালন করার জন্য সরকার নির্দেশনা দিয়েছে। যে কারণে দুর্গাপূজায় তেমন কোনো উৎসব হবে না। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সাত্ত্বিক আচারের মাধ্যমে পূজার আয়োজন সীমাবদ্ধ রাখতে হবে। এবার কুমারীপূজাও হবে না। মন্দির বন্ধ হয়ে যাবে রাত নয়টার মধ্যে। হবে না বিজয়ার শোভাযাত্রা। এমন বেশ কিছু কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ষষ্ঠী তিথিতে দেবীর আমন্ত্রণের মধ্য দিয়ে শারদীয় দুর্গাপূজা শুরু হয়েছে। এ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে সবাইকে দুর্গাপূজার শুভেচ্ছা। গণমাধ্যম সূত্রে জানতে পেরেছি,  এ বছর দুর্গাপূজায় মন্দিরে নারী ও পুরুষের জন্য আলাদা প্রবেশের ব্যবস্থা থাকবে। সামাজিক দূরত্ব মেনে, মাস্ক ব্যবহার করে ভক্তরা অঞ্জলি দিতে পারবেন। বিজয়া দশমী হবে ২৬ অক্টোবর, তবে এবার বিজয়ার শোভাযাত্রা হবে না। মন্দিরগুলো তাদের নিজ নিজ ব্যবস্থাপনায় প্রতিমা বিসর্জনের ব্যবস্থা করবে।এছাড়া সন্ধ্যার মধ্যেই আরতি সম্পন্ন করে দর্শনার্থীদের মন্দিরে আসতে নিরুৎসাহিত করা হবে। রাত নয়টার পর মন্দির বন্ধ করে দেওয়া হবে। আর কোনো দর্শনার্থীদের মন্দিরে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। এই নির্দেশনা করোনাভাইরাস আক্রান্ত থেকে কিছুটা হলেও রক্ষা করবে। আশা করব, সবাই উপরোক্ত বিষয়গুলো গুরুত্ব সহকারে মেনে চলবে।

বিজ্ঞাপন

এ বছর সারা দেশে মোট ৩০ হাজার ২৩১টি পূজা অনুষ্ঠিত হবে। গত বছর পূজা হয়েছিল ৩১ হাজার ৩৯১টি। এবার ১ হাজার ১৮৫টি পূজা কম হচ্ছে। কোভিড পরিস্থিতির কারণে পূজার সংখ্যা কমেছে। ঢাকা বিভাগে এবার ৭ হাজার ১৪টি মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। গত বছর অনুষ্ঠিত হয়েছিল ৭ হাজার ২৭১টি মন্দিরে। গত বছরের তুলনায় চট্টগ্রাম বিভাগে এবার ৫৫০টি মণ্ডপে পূজা কম হচ্ছে। এ বিভাগে এবার পূজা অনুষ্ঠিত হবে ৩ হাজার ৯০৬টি। খুলনা বিভাগে ৪ হাজার ৬৮৯টি, সিলেট বিভাগে ২ হাজার ৬৪৬টি, ময়মনসিংহ বিভাগে ১ হাজার ৫৮৪টি, বরিশাল বিভাগে ১ হাজার ৭০১ টি, রংপুর বিভাগে ৫ হাজার ২৫০টি এবং রাজশাহী বিভাগে ৩ হাজার ৪৩৫ টি মণ্ডপে এবার দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

এদিকে আমার নিজের মাটির ঠিকানা ঝিনাইদহে প্রতি বছর হাজারো উৎসব, আনন্দে দুর্গাপূজা উদযাপন করা হয়। এই বছরের ঝিনাইদহ পৌরসভার মধ্যে ৩১টি পূজামণ্ডপ স্থাপন করা হয়েছে। কোনো ধরনের আলোকসজ্জা হয়নি। তবে শহরে সড়ক বাতি দেওয়া হয়েছে। এছাড়া মন্দিরে প্রবেশের পথে ও শহরে স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। করোনাভাইরাস পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আগামী বছর খুবই জাঁকজমকপূর্ণভাবে এই উৎসব করা হবে। তবে হিন্দুধর্মাবলম্বী ভাই-বোনদের প্রতি অনুরোধ, আপনারা এবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজা উদযাপন করুন। নিজের ও পরিবারের জন্য ঝুঁকি বাড়াবেন না। এমনকি দেশের মানুষের কথা চিন্তা করে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে দুর্গাপূজা পালন করুন।

বিজ্ঞাপন

দুর্গাপূজার শুরু হতে না হতেই মঙ্গলবার রাতে ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে ও নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে প্রতিমা ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে বলে গণমাধ্যম সূত্রে জানতে পেরেছি। এই ঘটনা অসাম্প্রদায়িক দেশের জন্য কলঙ্কজনক। কারণে বঙ্গবন্ধুর অসাম্প্রদায়িক দেশে কোন ভেদাভেদ নেই। কারণ ধর্ম যার যার, উৎসব সবার। তবুও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারকে বিতর্কিত করার উদ্দেশ্যে পাকিস্তানের দোসররা পরিকল্পিতভাবে যড়যন্ত্র করছে। এই ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ব্যবস্থা করা হোক।

সর্বোপরি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণা করে একটি আধুনিক, সমৃদ্ধশালী দেশ গড়ে তুলতে নিজেকে আত্মনিয়োগ করেছেন। তিনি দেশের সকল ধর্মাবলম্বী মানুষদের সমান সুযোগ সুবিধা দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

লেখক: সাধারণ সম্পাদক,  ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগ 

প্রিয় পাঠক, লিখতে পারেন আপনিও! লেখা পাঠান এই ঠিকানায় -
sarabangla.muktomot@gmail.com

মুক্তমত বিভাগে প্রকাশিত মতামত ও লেখার দায় লেখকের একান্তই নিজস্ব, এর সাথে সারাবাংলার সম্পাদকীয় নীতিমালা সম্পর্কিত নয়। সারাবাংলা ডটনেট সকল মতাদর্শের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তবে মুক্তমতে প্রকাশিত লেখার দায় সারাবাংলার নয়।

সারাবাংলা/এসবিডিই/আইই

বিজ্ঞাপন

Tags: ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন