বিজ্ঞাপন

৪২৯ কোটি টাকার ৪ ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন

October 28, 2020 | 9:23 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ঢাকা ওয়াটার সাপ্লাই নেটওয়ার্ক ইমপ্রুভমেন্ট প্রকল্পের আওতায় মডস জোন-৭ এলাকায় ১৬৩ দশমিক ৯৫ কিলোমিটার পানির লাইন পুনর্বাসন সংক্রান্ত কাজে ঠিকাদার নিয়োগের কাজে অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। প্যাকেজ নং-ICB-02.12 কাজের জন্য সর্বনিম্ন দরদাতা প্রতিষ্ঠান জার্মানির লুডুইউং প্রিফিয়ার হুচন্ড টাইফবু জিএমবিএইচ কে নিয়োগের প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ১৬৪ কোটি ৯ লাখ ৪ হাজার ৪১৯ টাকা।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (২৮ অক্টোবর) সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সভাকক্ষে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে অনলাইনে অনুষ্ঠিত সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি’র ২৮তম বৈঠকে প্রস্তাবগুলোর অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। ঢাকা ওয়াটার সাপ্লাই নেটওয়ার্ক ইমপ্রুভমেন্ট প্রকল্পের আওতায় ৭টি ডিস্টিক মেট্রান্ড এরিয়া (ডিএমএ) কমিশনিংসহ একবছর পর্যন্ত নেটওয়ার্ক অপারেশন এবং রক্ষণাবেক্ষণ কাজ পেয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। বৈঠক শেষে অনলাইনে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

এলজিইডির আওতাধীন ‘রুরাল কানেকটিভিটি ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্টে’ প্রকল্প বাস্তবায়নের সহযোগী পরামর্শক হিসেবে চারটি প্রতিষ্ঠানকে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। যৌথভাবে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে। ডেভেলপমেন্ট ডিজাইনিং কনসালটেন্টস লিমিটেড বাংলাদেশ, জার্মানির জিআইটিইসি-আইজিআইপি জিএমবিএইচ, দেব কনসালটেন্টস লিমিটেড এবং রিসোর্স প্লানিং অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট কনসালটেন্টস প্রাইভেট লিমিটেড বাংলাদেশকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ৮৮ কোটি ৭৫ লাখ ৩০ হাজার ৫০৮ টাকা।

বিজ্ঞাপন

মন্ত্রী আরও জানান, সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি’র সভায় অনুমোদনের জন্য ৪টি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়েছে। তারমধ্যে স্থানীয় সরকার বিভাগের ২টি এবং পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের ও সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ১টি করে প্রস্তাবনা রয়েছে। অনুমোদিত চারটি প্রস্তাবে মোট অর্থের পরিমাণ ৪২৮ কোটি ৯৮ লাখ ৯৪ হাজার ২১২ টাকা। মোট অর্থায়নের মধ্যে জিওবি হতে ব্যয় হবে ১৭৬ কোটি ১৪ লাখ ৫৯ হাজার ২৮৫ টাকা এবং এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক হতে ঋণের পরিমাণ ২৫২ কোটি ৮৪ লাখ ৩৪ হাজার ৯২৭ টাকা।

পরে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ড. আবু সালেহ্ মোস্তফা কামাল প্রস্তাবগুলোর বিভিন্ন দিক নিয়ে সাংবাদিকদের বৈঠকের বিস্তারিত তুলে ধরেন। বৈঠকে অনুমোদিত অন্যান্য প্রস্তাবগুলো হলো; ‘বুড়িগঙ্গা নদী পুনরুদ্ধার (নিউ ধলেশ্বরী-পুংলী-বংশাই-তুরাগ-বুড়িগঙ্গা রিভার সিস্টেম) (২য় সংশোধিত)’ প্রকল্পের পূর্ত কাজ সম্পাদনে ঠিকাদার নিয়োগের প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়। যৌথভাবে পূর্ত কাজটি সমবপাদন করবে এলএ এবং টিটিএলএ। এতে মোট ব্যয় হবে ৫০ কোটি ৬২ লাখ ৪৬ হাজার ৩৩০ টাকা।

বিজ্ঞাপন

এ ছাড়া পালবাড়ী-দড়াটানা-মনিহার-মুড়ালী জাতীয় মহাসড়ক (এন-৭০৭) এর মনিহার হতে মুড়ালী পর্যন্ত ৪-লেনে উন্নীতকরণ” প্রকল্পের পূর্ত কাজ সম্পাদনে দুইটি প্রতিষ্ঠানকে নিয়োগ দিয়েছে কমিটি৷ যৌথভাবে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে আতাউর রহমান খান লিমিটেড এবং মাহবুব ব্রাদাস প্রাইভেট লিমিটেড৷ প্রকল্পটি বাস্তবায়েনে ব্যয় ধরা হয়েছে ১২৫ কোটি ৫২ লাখ ১২ হাজার ৯৫৫ টাকা। এই প্যাকেজের আওতায় সড়ক বাঁধ নির্মাণ, বিদ্যমান পেভমেন্ট নতুন করে নির্মাণ, স্লো মোভিং ভেহিক্যাল ট্র্যাক লেন, সার্ফেসিং মূল পেভমেন্ট, সার্ফেসিং এসএমভিটি লেন, রিজিভ পেভমেন্ট, আরসিসি ড্রেন কাম ফুটপাত, আরসিসি ক্রস ড্রেন, িনিউ জার্সি ব্যারিয়ার, সড়ক ডিভাইডার, সাইন, সিগনাল, গাইড পোস্ট, রোড মার্কিং ইত্যাদি নির্মাণ করা হবে।

এদিকে এরআগে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি’র ১৯তম সভায় একটি প্রস্তাবের নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীন “পায়রা বন্দরের রাবনাবাদ চ্যানেলের (ইনার ও আউটার চ্যানেলে) জরুরি রক্ষণাবেক্ষণ ড্রেজিং” প্রকল্পটি পাবলিক প্রকিউরমেন্ট আইন-২০০৬ এর ধারা ৬৮(১) এবং পাবলিক প্রকিউরমেন্ট বিধিমালা-২০০৮ এর বিধি ৭৬(২) মোতাবেক রাষ্ট্রীয় জরুরি প্রয়োজনে বেলজিয়ামভিত্তিক ড্রেজিং কোম্পানি জান ডি নুল এর মাধ্যমে সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে (DPM) বাস্তবায়নের প্রস্তাবের নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন