বিজ্ঞাপন

সরকার বিরাজনীতিকরণের ষড়যন্ত্রে বিশ্বাসী নয়, বিএনপিকে কাদের

October 28, 2020 | 11:49 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বিএনপির রাজনৈতিক উদ্দেশ্যহীনতা এবং চিরাচরিত মিথ্যাচার ক্রমশই দেশের রাজনীতিতে অপ্রাসঙ্গিক করে তুলেছে দাবি করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘সরকার বিরাজনীতিকরণে বিশ্বাসী নয়। আমাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওয়ান-ইলেভেনে বিরাজনীতিকরণের টার্গেট হয়েছিলেন। আমরা এদেশের মাটি ও মানুষের সঙ্গে রাজরীতি করি। আমরা ষড়যন্ত্রে বিশ্বাস করি না। ষড়যন্ত্রের টার্গেট করি না। এটাই হচ্ছে আওয়ামী লীগের ইতিহাস।’

বিজ্ঞাপন

বুধবার (২৮ অক্টোবর) সকালে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশন (বিআরটিসি)র উদ্যোগে গাবতলী ট্রেনিং সেন্টার উদ্বোধন শেষে তিনি এ সব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল সাহেব বলেছেন সরকার নাকি বিরাজনীতিকরণ করছে এবং বিএনপিকে রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে রাখছে? সরকার নয় বিএনপি নিজেদের অপরাজনীতির জন্যই দিন দিন জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে। নির্বাচনে তারা অংশ নেয় লোক দেখানো, ভোটের দিন কেন্দ্রে আসে না, এতে তারা ভোটারদের আস্থা হারাচ্ছে। আন্দোলনের ডাক দিয়ে নেতারা ঘরে বসে থাকে, এতে কর্মীদের আস্থা হারাচ্ছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগে সংকটে জনগণের পাশে না দাঁড়িয়ে গণমাধ্যমে বক্ততা-বিবৃতি দিয়ে বেড়াচ্ছে।’

বিজ্ঞাপন

তিনি আরও বলেন, ‘রাজনৈতিক উদ্দেশ্যহীনতা এবং চিরাচরিত মিথ্যাচার বিএনপিকে ক্রমশই দেশের রাজনীতিতে অপ্রাসঙ্গিক করে তুলেছে। তারা নিজেরাই করছে। সরকার বিরাজনীতিকরণে বিশ্বাসী নয়। আমাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওয়ান-ইলেভেনে বিরাজনীতিকরণের টার্গেট হয়েছিলেন। আমরা এদেশের মাটি ও মানুষের সঙ্গে রাজরীতি করি। আমরা ষড়যন্ত্রে বিশ্বাস করি না, ষড়যন্ত্রের টার্গেট করি না। এটাই হচ্ছে আওয়ামী লীগের ইতিহাস।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে আমরা শক্তিশালী করতে চাই। বিরোধী দলগুলোর একটিভ ভূমিকা প্রত্যাশা করি। নির্বাচনে কিংবা উপ নির্বাচনে প্রার্থীর মনোনয়নে বিএনপির মনোনয়ন বাণিজ্য গন্তব্যহীন রাজনীতি, নেতৃত্ব সংকট, নেতৃত্বের প্রতি কর্মীদের আস্থাহীনতা, অনেক সিনিয়র নেতা দলের বিরুদ্ধে কথা বলছেন, নিজেদেও নিষ্ক্রিয় রাখছেন। রাজনীতি বিমুখ হচ্ছেন। দলের অনেকেই দলের নেতৃত্বকে বলছেন যে, কোমর ভাঙা রাজনীতি। বিএনপি নিজেই নিজের নেতাদের রাজনীতি বিমুখ করে তুলেছে। একটি দায়িত্বশীল রাজনৈতিক দল কখনো নির্বাচনবিমুখ হতে পারে না। গণতন্ত্রের কথা বিএনপি মুখে বলে কিন্তু নির্বাচন প্রক্রিয়াকে করে না। নির্বাচনের অংশ নেওয়ার আগেই তারা হেরে যান। তাদের রাজনীতি আত্মবিশ্বাস এখন প্রায়ই তলানিতে ঠেকেছে।’

বিজ্ঞাপন

‘আন্দোলনে ব্যর্থতার জাল, তাদের নির্বাচনেও ভর করেছে। তাই দুটোতেই চরম ব্যর্থতা। আওয়ামী লীগও বিরোধী দলে ছিল। আওয়ামী লীগ বিরোধী দলে ছিল অনেকদিন। আমি বিএনপি নেতাদের বলবো, বিরোধী দলের কী ভূমিকা থাকা উচিত দেশের রাজনীতিতে সেটা জানতে আওয়ামী লীগের অতীত ভূমিকা দেখুন, তখন নিজেদের ব্যর্থতা চিহ্নিত করা সহজ হবে।’

বিএনপি নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে চান। ব্যর্থতা চাপা দিতে সরকারের ওপর দোষ চাপান। নিজেদের নেত্রীর মুক্তির জন্য রাজপথে তারা ব্যর্থ, আইনি লড়াইয়ে তারা ব্যর্থ। শেখ হাসিনার মানবিকতা উদারতায় বেগম জিয়ার সাজা স্থগিত করাহয়েছে। এটি প্রধানমন্ত্রী ঔদার্য্য। বিএনপির কোনো কৃতিত্ব নেই। বিএনপির নেতারাই বিএনপির রাজনীতিকে কোমরভাঙ্গা রাজনীতি বলে আখ্যায়িত করেছে বলে দাবি করেন ওবায়দুল কাদের।

বিজ্ঞাপন

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘দেশে নারী গাড়ীচালকের চাহিদা দিন দিন বড়ছে, তাই বিআরটিসির মহিলা বাস সার্ভিস, স্কুল বাস সার্ভিসে শতভাগ নারী চালক ও সহকারীদের সম্পৃক্ত করা জরুরী। সেবার মান, দক্ষতা ও ব্যবস্থাপনা উন্নয়নের পাশাপাশি বিভিন্ন সেবায় প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ালে এবং স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা গেলে বিআরটিসিকে লাভজনক করা সম্ভব।’

সরকার বিআরটিসিকে একটি জনবান্ধব ও সেবাবান্ধব প্রতিষ্ঠান হিসেবে দেখতে চায়। সংশ্লিষ্ট সকলের আন্তরিক চেষ্টায় বিআরটিসি অবশ্যই লাভের ধারায় ফিরবেন বলে আশাবাদ করেন ওবায়দুল কাদের।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এনআর/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন