বিজ্ঞাপন

আলোচনায় প্রামাণ্য চলচ্চিত্র ‘আয়রন ম্যান’

November 21, 2020 | 10:00 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ‘নির্মাতা কামরুল হাসান নাসিমের নতুন উদ্যোগ আয়রন ম্যান’! প্রামাণ্য চলচ্চিত্রটি নিয়ে এরই মধ্যে রাজনৈতিক অঙ্গনে তৈরি হয়েছে কৌতূহল। প্রযোজনা সংস্থা বৈষ্টমীর ব্যানারে রাজনীতিক ও সাংবাদিক আনোয়ার হোসেন মঞ্জুকে নিয়ে নির্মিত এই প্রামাণ্য চলচ্চিত্রটির প্রিমিয়ার ২৮ নভেম্বর বলে জানিয়েছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান।

বিজ্ঞাপন

‘আয়রন ম্যান’র ট্রেলার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে চলচ্চিত্রটি নিয়ে জোর আলোচনা চলছে। প্রামাণ্য চলচ্চিত্রটি নির্মাণে দেশের রাজনৈতিক পর্যায়ে গবেষণা সংস্থা হিসাবে স্বীকৃত কে এইচ এন রিসার্চ টিম সহযোগিতায় রয়েছে। আইডিয়াল থিংকারস অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে এই চলচ্চিত্রটিতে আওয়ামী লীগ, ইত্তেফাক, মানিক মিয়া, মহান মুক্তিযুদ্ধ ও একজন আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর জীবন-কর্ম তুলে ধরা হয়েছে।

কেন এই প্রামাণ্য চলচ্চিত্র নির্মাণে আগ্রহী হলেন?— এমন প্রশ্নের জবাবে নির্মাতা কামরুল হাসান নাসিম সারাবাংলাকে বলেন, “আনোয়ার হোসেন মঞ্জুকে নতুন প্রজন্মের জন্য আদর্শ হিসেবে দেখানোর চেষ্টায় এটি নির্মাণ করা হয়েছে। কারণ, ৪৯ বছরের বাংলাদেশে শাসকশ্রেণিতে যাতায়াত করা রাজনৈতিক দলগুলো অনেক সময় দলের ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করতে গিয়ে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে দিয়ে বলতে থাকেন। আর বলেন, চালাও। কিন্তু যারা চালাতে আসেন, তাদের বেশিরভাগই আমলাতান্ত্রিক শাসনরীতির প্রচলিত নিয়মে ‘সচিব’ নির্ভর হয়ে পড়েন। যেখানে একজন আনোয়ার হোসেন মঞ্জু ব্যতিক্রমী নেতা কিংবা সত্যিকারের অভিভাবক পর্যায়ের প্রতিনিধি। তিনি মন্ত্রণালয় কীভাবে চালাতে হয় তা জানেন। ঠিক সে কারণে এমন রাজনীতিকের মৃত্যুর আগের দিন পর্যন্ত বড়সড় দায়িত্বে থাকার বাস্তবতা দৃশ্যমান হলে দেশের জন্য মঙ্গল। অন্যদিকে দেশের রাজনৈতিক ইতিহাসের ইতিবাচক ধারার প্রতিনিধি হিসেবে তাকে তুলে ধরার মানসে এটি করা হয়েছে। কারণ, সত্য বলতে হবে, ইতিহাসকে তুলে ধরতে হবে। দলকে ছাপিয়ে দেশের স্বার্থ বড় করে দেখার অনন্য দৃষ্টান্ত হিসেবে তাকে ইতিহাসে জায়গা না দেওয়াটাও সাংস্কৃতিক অপরাধ বলে বিবেচনার সুযোগ সৃষ্টি হয়।’

বিজ্ঞাপন

নাসিম বলেন, ‘দেশের মানুষ বিচার করুক, চলচ্চিত্রটি কেমন হলো! আমি মনে করি, আন্তর্জাতিক মান বজায় রেখে এটি নির্মিত।’

‘চলচ্চিত্রটি আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে অংশ নেবে। শ্যুট করা হয়েছে ঢাকা, পিরোজপুর ও গাজীপুরের বিভিন্ন লোকেশনে। দেশের সিনে কমপ্লেক্সে মুক্তি পাবে, নাকি কোনো থিয়েটারে, সে প্রসঙ্গে আমি বলব, দেশের বিদগ্ধজনের উপস্থিতিতে আগামী ২৮ নভেম্বর এটির প্রিমিয়ার শো অনুষ্ঠিত হবে। আগামী ২৫ নভেম্বর প্রযোজনা সংস্থা বৈষ্টমী জানিয়ে দেবে আয়রন ম্যান’র গন্তব্য কিংবা সু-বিন্যস্ত ভবিষ্যৎ’— বলেন কামরুল হাসান নাসিম।

বিজ্ঞাপন

ট্রেলারে ইতোমধ্যে আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এবং দেশের স্ব স্ব অঙ্গনের পেশাজীবী কৃতি বাসিন্দাদের দেখা গেছে। এই প্রসঙ্গে 'বৈষ্টমী' বলছে, যাদের বয়স ৩৭ থেকে ৪৭'র মধ্যে তাদের গুরুত্ব দিয়ে একজন মঞ্জুর ওপর আলোচনায় রাখা হয়েছে। যাদের মধ্যে বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গাণি, সাংবাদিক জব্বার হোসেন ও আসাদ জামান কথা বলেছেন। এছাড়া সাংসদ নিক্সন চৌধুরী আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর জামাতা হিসেবে এং তারিন মঞ্জু পরিবারের সদস্য হয়ে কথা বলেছেন। কথা বলেছেন সাংবাদিক ও গবেষক আয়শা এরিন এবং রাজনৈতিক ধারাভাষ্যকার ও গবেষক হিসেবে নির্মাতা কামরুল হাসান নাসিমও। যাদের প্রত্যকের বয়স ৫০ বছরে নীচে। অন্যদিকে আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এই চলচ্চিত্রে বঙ্গবন্ধু, ৭ই মার্চের ভাষণ, শেখ হাসিনা ও নিজের সম্পর্কেও কথা বলেছেন।

তবে নির্মাতা নাসিম বলেছেন, ‘প্রিমিয়ার দেখার পর হিসাব খানিকটা বদলে যাবে। কারণ, যা এখন দেখা যাচ্ছে বা বলা হচ্ছে, ঠিক সেভাবেই সবকিছু হবে এমন করে বলবার সুযোগ কম। কারণ, দেশের জ্যেষ্ঠ রাজনীতিক, সাংবাদিক ও বিশিষ্ট আরও বেশকয়েকজন পেশাজীবীর উপস্থিতি নিশ্চিত করেই এগিয়েছে আয়রন ম্যান।’

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এজেড/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন