বিজ্ঞাপন

খালেদ মাহমুদ ভুঁইয়ার বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট অনুমোদন

November 23, 2020 | 5:01 pm

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ৮ কোটি ৭৫ লাখ টাকা বিদেশে পাচার এবং ৪২ কোটি ৭৫ লাখ টাকা অবৈধ সম্পদ অর্জনের দায়ে যুবলীগের বহিষ্কৃত নেতা খালেদ মাহমুদ ভুঁইয়ার বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

বিজ্ঞাপন

সোমবার (২৩ নভেম্বর) খালেদের বিরুদ্ধে এ চার্জশিট অনুমোদন দেওয়া হয় বলে দুদক সূত্রে জানা গেছে। এর আগে গত ২১ অক্টোবর জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে মামলা করে দুদক।

জানা যায়, রাজধানীর শান্তিনগর, মালিবাগ, কমলাপুর, মতিঝিল, খিলগাঁও, সবুজবাগসহ বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ মাছের হাট, পশুর হাট, গণপরিবহন সিএনজি স্টেশনসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে প্রভাব খাটিয়ে চাঁদাবাজি করতেন। শাহাজাহানপুরে রেলওয়ের জমিতে অবৈধভাবে মার্কেট নির্মাণ করার পর তা বিক্রি করে বিপুল পরিমাণ টাকা উপার্জন করে। এছাড়া মতিঝিল ফকিরাপুলে ইয়ংমেনস ক্লাবে অবৈধভাবে ক্যাসিনো চালিয়ে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নেন। এসব টাকা দিয়ে তার নামে ভুঁইয়া অ্যান্ড ভুঁইয়া ডেভেলপারস লিমিটেড, অর্ক বিল্ডার্স ও অর্পণ প্রোপার্টিজ নামে তিনটি প্রতিষ্ঠান তৈরি করেন।

বিজ্ঞাপন

এছাড়া অবৈধ আয়ের টাকা দিয়ে গুলশানে একটি, শাহজাহানপুরে একটি এবং মোহাম্মদপুর কাদেরিয়া হাউজিংয়ে একটিসহ মোট তিনটি ফ্ল্যাট কিনেছেন খালেদ। এর বাইরে তার নামে একটি প্রাডো এবং একটি নোহা গাড়ি রয়েছে। খালেদ মাহমুদ অবৈধ অর্থ মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ও থাইল্যান্ডসহ বিভিন্ন দেশে টাকা পাচার করেছেন।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে ১৮ সেপ্টেম্বর রাজধানীর গুলশানের বাসা থেকে ক্যাসিনো গডফাদার যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে গ্রেফতার করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। এ সময় তার বাসা থেকে একটি অবৈধ অস্ত্র, লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ করা আরও দু’টি অস্ত্র, কয়েক রাউন্ড গুলি ও দুই প্যাকেটে ৫৮২ পিস ইয়াবা জব্দ করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এছাড়া তার বাসার শোকেস থেকে ১০ লাখ ৩৪ হাজার টাকা ও চার থেকে পাঁচ লাখ টাকা সমমূল্যের মার্কিন ডলার জব্দ করা হয়। গ্রেফতারের থেকেই খালেদ একাধিক মামলায় এখনও কারাগারে রয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসজে/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন