বিজ্ঞাপন

হাওরে বাঁধ কেটে দিয়েছে ইজারাদার, নষ্ট কৃষকের বীজতলা

December 1, 2020 | 11:54 am

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

নেত্রকোনা: জেলার খালিয়াজুরী উপজেলার চাকুয়া ইউনিয়নের শালদিঘা ও হারাকান্দি মৌজার গৌরাঙ্গ মরাগাঙ্গের বিলের পানি কমানোর জন্য হাওর রক্ষা বেড়িবাঁধ কেটে কৃষকের বীজতলা নষ্ট করে দিয়েছে বিলের ইজারাদার ও সহযোগীরা। বেড়িবাঁধ কাটার সাথে সাথেই পানির চাপে বাঁধ ভেঙে তীব্রগতিতে কৃষকের বীজতলায় প্রবেশ করছে পানি। এতে বিপাকে পড়েছেন এলাকার কৃষকেরা।

বিজ্ঞাপন

স্থানীয় কৃষকেরা জানান, মধ্যরাতে প্রচুর পরিমান পানির চাপে বাঁধ ভাঙায় নষ্ট হয়ে গেছে প্রায় তিন লাখ টাকার বীজ ধান। বীজ ধান পানিতে ডুবে যাওয়ায় তারা এখন দিশেহারা। ফের বাঁধ মেরামত করতেও ইজারাদারের লোকেরা বাধা দিচ্ছে বলেও জানিয়েছেন কৃষকেরা।

স্থানীয় কৃষক ইসমাইল মিয়া বলেন, ‘বেড়িবাঁধ কাটার খবর যখন পেয়েছি, তখনই বাঁধরক্ষার জন্য ছুটে গিয়েছিলাম। কিন্তু ইজারাদারের ক্ষমতার দাপটে আতংকে আছি। এই বাঁধ কেটে দেওয়ায় আমার ৩৬ হাজার ৭০০ টাকার বীজ ধান নষ্ট হয়েছে। এখানে যারা বীজ ধান ফলন করছিল সবারই ক্ষতি হয়েছে।’

বিজ্ঞাপন

হাওরের কৃষক, রহমান, মজিদ খাঁ, জয়ন্তসহ আরো অনেকেই বলেন, ‘হাওর রক্ষা বেড়িবাঁধ শুধু হাওর রক্ষার জন্য নয়, এই বাঁধ চাকুয়া ইউনিয়নের পাঁচ-ছয়টি গ্রামের প্রধান সড়ক। আমরা প্রশাসনের কাছে এই ঘটনার বিচার চাই।’

তবে বিলের ইজারাদার মহসিন মিয়া ও সালাম মিয়া বলেন, ‘উপজেলা প্রশাসনের কাছ থেকে এই বিল আমরা লিজ নিয়েছি। গত প্রায় ৯ বছর ধরে এই বিল পিসিং করে আসছি। এই বিলের পানি এভাবেই ছাড়া হয়।’ তবে কৃষকদের বীজতলা তলিয়ে যাওয়ার বিষয়ে তারা কিছু জানেন না বলেও জানান।

বিজ্ঞাপন

খালিয়াজুরী উপজেলার নির্বাহী অফিসার এ এইচ এম আরিফুল ইসলাম এলিন বলেন, ‘আমার কাছে বাঁধ কেটে দেওয়ার বিষয়ে কোনো অভিযোগ নেই। অভিযোগ পেলে ঘটনা তদন্ত করে দোষীদের আইনের আওতায় আনা হবে।’

সারাবাংলা/এমও

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন