বিজ্ঞাপন

‘সভা-সমাবেশে বিধিনিষেধ গণতান্ত্রিক অধিকার হরণের সামিল’

December 3, 2020 | 9:02 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: রাজধানী ঢাকায় সভা-সমাবেশ ও মিছিলের ওপর ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) বিধিনিষেধকে নাগরিকদের গণতান্ত্রিক অধিকার হরণ করার সামিল হিসেবে উল্লেখ করেছেন বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক। পুলিশের এই বিধিনিষেধ অবিলম্বে প্রত্যাহার করে নাগরিকদের সংবিধান স্বীকৃত গণতান্ত্রিক অধিকার নিশ্চিত করার আহ্বান জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (৩ ডিসেম্বর) এক বিৃতিতে তিনি এ আহ্বান জানান। মিছিল ও সভা-সমাবেশে পুলিশের বিধিনিষেধকে ‘রাজনীতির সীমানা ঠিক করে দেওয়া’র সঙ্গে তুলনা করেন তিনি।

এর আগে, বুধবার (২ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় ডিএমপির গণমাধ্যম শাখা থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ইদানীং লক্ষ্য করা যাচ্ছে— ঢাকা মহানগর এলাকায় যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি না নিয়েই বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় সংগঠন সভা-সমাবেশ ও গণজমায়েতের মতো কর্মসূচি ঘোষণা দিচ্ছে। তাদের কর্মসূচি পালন করতে রাস্তায় নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হওয়ায় যান ও জনমানুষের চলাচলে বিঘ্ন ঘটছে।

বিজ্ঞাপন

এ পরিস্থিতিতে আগে থেকে অনুমতি না নিয়ে রাজধানী ঢাকায় কোনো ধরনের মিছিল কিংবা সভা-সমাবেশ আয়োজন না করতে ডিএমপি সবাইকে অনুরোধ জানায়। অনুমতি না নিয়েই এ ধরনের কোনো কর্মসূচি পালন করলে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানায় ডিএমপি।

ঢাকা মহানগর পুলিশের এই বিজ্ঞপ্তির প্রতিক্রিয়ায় বিবৃতিতে সাইফুল হক বলেন, জনশৃঙ্খলার যে অজুহাতে ঢাকা মহানগরীতে সভা-সমাবেশের ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে, তা পুরোপুরি অযৌক্তিক। এই নিষেধাজ্ঞা ‘বজ্র আটুনি ফস্কা গেরো’র মতো। করোনাভাইরাস সংক্রমণের মধ্যে দায়দায়িত্বহীনভাবে সবকিছু খুলে দিয়ে এখন সভা-সমাবেশে বিধিনিষেধ আরোপ বিরোধী কণ্ঠ দমনে সরকারের স্বৈরতান্ত্রিক তৎপরতারই অংশ। এ ধরনের বিধিনিষেধ দেশকে ক্রমান্বয়ে আরও শক্তপোক্তভাবে পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত করবে।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির এই নেতা ক্ষোভ জানিয়ে বলেন, সরকারি দল তাদের সহযোগী সংগঠন ও সমর্থকদের সভা-সমাবেশের জন্য পূর্বানুমতির প্রয়োজন হয় না। অথচ বিরোধী দলকে অসংখ্য শর্তে সভা-সমাবেশ-মিছিল করতে হয়। পুলিশ যে সীমা বেঁধে দেয়, তার মধ্যেই তাদের থাকতে বলা হয়। এভাবে এক দেশে দুই ধারা, দুই আইন চালু রয়েছে। এটা চলতে পারে না।

সাইফুল হক বিবৃতিতে আরও বলেন, পুলিশ এখন রাজনীতির সীমানা ঠিক করে দিচ্ছে। সরকার ও সরকারি দলকে খুশি রাখতে বিরোধীদের দমনে তারা যখন তখন বলপ্রয়োগ করে চলেছে। পুলিশি বাড়াবাড়ি ও নির্যাতন-নিপীড়নের কারণেও অনেক সময় বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এএইচএইচ/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন