বিজ্ঞাপন

কৃষকদের কটাক্ষ করে কঙ্গনার কবিতা

December 9, 2020 | 6:01 pm

এন্টারটেইনমেন্ট ডেস্ক

বলিউডের বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দু মানেই অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়াত। প্রথম থেকেই সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুরহস্য নিয়ে সরব তিনি। সুশান্তের মৃত্যুতে বলিউডের নেপোটিজম, ফেভারিটজম এবং নানা অন্ধকার দিক তুলে একের পর এক মন্তব্য করে খবরের শিরোনামে উঠে আসেন এই অভিনেত্রী। বিতর্কের সঙ্গে ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে গিয়েছে তার নাম। কিন্তু এই বিতর্কে জড়াতে গিয়ে পড়লেন আইনি বিপাকেও। একের পর এক মামলা দায়ের করা হয় তার বিরুদ্ধে। প্রথমে কৃষি বিল সংক্রান্ত, এরপর সাম্প্রদায়িক উসকানির জন্য এবং পরবর্তীতে মানহানির মামলা দায়ের করেছেন বলিউডের নামী গীতিকার, চিত্রনাট্যকার জাভেদ আখতার।

বিজ্ঞাপন

সাম্প্রতিক ভারতে চলমান কৃষক আন্দোলন নিয়ে বিতর্কিত টুইটের পর থেকেই বলিউড অভিনেত্রীকে পড়তে হয়েছে কড়া সমালোচনার মুখে। এমন কি দিল্লি শিখ গুরুদ্বার ম্যানেজমেন্ট কমিটির এক সদস্য আইনি নোটিস পাঠালেন তাকে। পাশাপাশি কঙ্গনার টুইটার অ্যাকাউন্ট উড়িয়ে দেওয়ার দাবিতে জমা পড়ল পিটিশনও। এর পাশাপাশি বলিউড অভিনেতা দিলজিৎ দোসাঞ্জের সঙ্গে লাগাতার টুইট যুদ্ধ তো রয়েইছে। সব মিলিয়ে বিতর্কের কেন্দ্রে এই ‘কন্ট্রোভার্সি কুইন’।

এতো বিতর্ক থাকা সত্বেও থেমে নেই এই ‘কন্ট্রোভার্সি কুইন’। কৃষি আইনের বিরোধিতায় যখন সারা ভারত জুড়ে বন্‌ধ চলছে, তখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিন্ন মেজাজে প্রতিবাদে মুখর হলেন কঙ্গনা। আচমকা কবি হয়ে উঠলেন এই বলিউড অভিনেত্রী।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আধ্যাত্মিক গুরু সদগুরুর একটি পুরানো ভিডিও পোস্ট করেন কঙ্গনা। যেখানে দেশের বন্‌ধ সংস্কৃতির বিরুদ্ধে মতামত প্রকাশ করতে দেখা যাচ্ছে এই আধ্যাত্মিক গুরুকে। পুরানী সেই ভিডিওতে সদগুরু বলছেন, ‘স্বাধীনতার আগে ইংরেজদের হাত থেকে ভারতবর্ষকে রক্ষা করতে বন্‌ধকে হাতিয়ার করেছিলেন মহাত্মা গান্ধী। কিন্তু এখন মানুষ সেই বন্‌ধকে হাতিয়ার করেই ভাল কাজে বাধা দেয়। মানুষের সমস্ত কিছু চাই, কিন্তু তার জন্য ত্যাগ স্বীকার করতে রাজি নয়।’

বিজ্ঞাপন

সদগুরুর এই ভিডিও শেয়ার করে ক্যাপশনে কবিতার মেজাজে কঙ্গনা লিখলেন, ‘এস তবে করি ভারত বন্‌ধ। নৌকা তো এমনিতেই ঝড়ের আঘাতে জর্জরিত, তাও কুড়োলটা নিয়ে এস আরও কয়েকটা ফুটো করে দিই। দেশভক্তদের বল, এবার তোমরাও নিজেদের জন্য দেশের একটা টুকরো চেয়ে নাও। রাস্তায় নেমে তুমিও ধরনা দাও। চল এই গল্প আজ এখানেই শেষ করি।’

উল্লেখ্য, বিতর্কের সূত্রপাত ভারতে চলমান কৃষক আন্দোলনে যোগ দেওয়া এক বৃদ্ধাকে ‘শাহিনবাগের দাদি’ বিলকিস বানোর সঙ্গে গুলিয়ে ফেলা ও তার সম্পর্কে বিরূপ মন্তব্য করার পরই। কঙ্গনা কটাক্ষ করে লিখেছিলেন, ‘একে তো ১০০ টাকার বিনিময়েই পাওয়া যায়।’ এরপর থেকেই নেটিজেনদের অনেকেই ফুঁসে ওঠেন কঙ্গনার বিরুদ্ধে। যে মহিলাকে কঙ্গনা বিলকিস বানো বলে ভুল করেছিলেন, তার আসল নাম মহিন্দর কউর। তিনিও ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে। কঙ্গনার এই কবিতার পোস্ট দেখে নিন্দুকরা বলছেন, ইটের জবাবে পাটকেল খেয়েই নাকি দার্শনিক হয়ে উঠেছে বলিউডের কন্ট্রোভার্সি ক্যুইন।

সারাবাংলা/এএসজি

Tags: , ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন