বিজ্ঞাপন

কোচ সালাহউদ্দিনের ভাবনায় শুধুই শিরোপার লড়াই

December 17, 2020 | 4:01 pm

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

বঙ্গবন্ধু টি টোয়েন্ট কাপের লিগ পর্ব থেকে প্লে অফ রাউন্ড অবদি মোট দশটি ম্যাচ খেলেছে গাজী গ্রুপ টট্টগ্রাম। এর মধ্যে হেরেছে মাত্র দুটিতে। বাকি ৮ টিতেই চট্টলা শিবিরে বেজেছে বিজয়ের ক্যালিপসো সুর। যা তাদের বেশ দাপটের সঙ্গেই ফাইনালের মঞ্চে পৌঁছে দিয়েছে। কিন্তু বিস্ময়ের ব্যাপার হল, শিরোপা লড়াইয়ের মঞ্চে বর্ণিল সেই অতীতে ফিরে যেতে যাইছেন না দলের হেড কোচ মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন, ভুল করেও চাইছেন না তৃপ্তির ঢেকুর তুলতে। পক্ষান্তরে তার কাছে প্রাধান্য পাচ্ছে কতটা দক্ষ হাতে ফাইনাল চাপ সামলাবেন ও কত ভাল সিদ্ধান্ত নিয়ে শিরোপার মুকুট ছিনিয়ে আনবেন।

বিজ্ঞাপন

বারুদে ঠাসা ফাইনাল ম্যাচটি গড়াবে রাত পোহালেই। যেখানে মোহাম্মদ মিঠুনদের প্রতিপক্ষ লাল-সবুজের দুই অভিজ্ঞ দলপতি মাশরাফি বিন মুর্তজা ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের জেমকন খুলনা। স্বীকৃত টি টোয়েন্টিতে যাদের ১শ টিরও বেশি ম্যাচে নেতৃত্বের অভিজ্ঞতা রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে এমন একটি ম্যাচের আগে অযথাই স্মৃতিকাতর হওয়ার সুযোগই দেখছেন না গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের হেড। বরং প্রতিটি পদক্ষেপইন ভীষণ বাস্তববসম্মত নিতে চাইছেন।

বৃহস্পতিবার (১৭ ডিসেম্বর) মিরপুর জাতীয় ক্রিকেট একাডেমি মাঠে ম্যাচ পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে এসে তিনি একথা জানান।

বিজ্ঞাপন

মোহাম্মদ সাহাহউদ্দিন বলেন, ‘আগের ১০ ম্যাচ আপনি কি করেছেন, তা কিন্তু ফাইনালে যায় আসবে না। ফাইনালে আপনি কীভাবে চাপটা নিচ্ছেন এবং কতটা ভালো সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন, সেটার উপর নির্ভর করবে আপনার ফলাফল কেমন হবে।’

পদক্ষেপ যত সতর্কই হোক না কেন ফাইনালের মহারণে প্রতিপক্ষকে একটি জায়গায় এগিয়ে রাখছেনই গাজী গ্রুপের এই কোচ। আর সেটা হল অভিজ্ঞতা। যেহেতু জেমকন খুলনা দলটি অভিজ্ঞতায় ঠাসা। টি টোয়েন্টিতে যা রীতিমত টনিকের মত কাজ করে। মাশরাফি ও মাহমুদউল্লাহ তো আছেনই, আরো আছেন; ইমরুল কায়েস, এনামুল হক বিজয়, জহুরুল ইসলাম ও শুভাগত হোমের মত অভিজ্ঞ ক্রিকেটাররা। মুহুর্তেই যারা ম্যাচের ভাগ্য বদলে দিতে দারুণ পারঙ্গম।

বিজ্ঞাপন

‘আমি মনে করি টি-টোয়েন্টি হচ্ছে অভিজ্ঞ প্লেয়ারের খেলা। মাঠের ভিতরে যাদের যত ভালো মাথা থাকবে, তারাই ম্যাচ জিতবে। সেদিক দিয়ে খুলনা অনেক এগিয়ে আছে। কারণ তাদের অনেকগুলো বড় বড় ক্রিকেটার আছে।’

পক্ষান্তরে গাজী গ্রুপ চট্টগ্রাম দলটি একেবারেই তরুণ। দু’একজন বাদ দিলে বাকি যারা আছেন ততটা টি টোয়েন্টি অভিজ্ঞতাপুষ্ট নন। অবশ্য সেটা নিয়ে কোচ সালাহউদ্দিনকে খুব একটা না ভাবলেও মনে হয় চলবে। কেননা গ্রুপ পর্বের লড়াইয়ে এই দলটিকেই দুইবার হারিয়েছে মিঠুন অ্যান্ড কোং। ওহ, সেই দলে কিন্তু সাকিব আল হাসানও ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার (১৮ ডিসেম্বর) মিরপুর শের ই বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৪টায়।

সারাবাংলা/এমআরএফ/এসএইচএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন