বিজ্ঞাপন

বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্ত ৯ কোটি

January 11, 2021 | 11:05 pm

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

বিশ্বজুড়ে নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণে সৃষ্ট বৈশ্বিক মহামারি কোভিড-১৯ এ আক্রান্তের সংখ্যা নয় কোটি ৮৫ লাখ পাঁচ হাজার ৪৪২ জনে দাঁড়িয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সোমবার (১১ জানুয়ারি) বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে দশটা পর্যন্ত এ তথ্য জানিয়েছে ওয়ার্ল্ডোমিটার্স ডট ইনফো।

একই সময়ে, মহামারিতে ১৯ লাখ ৪৬ হাজার ২২৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর আক্রান্তদের মধ্যে ছয় কোটি ৪৯ লাখ ৫৯ হাজার ৪৭৩ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

বিজ্ঞাপন

এমন এক সময়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৯ কোটির ঘর ছাড়াল যখন যুক্তরাজ্য ও দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের অধিক সংক্রমণক্ষম দুইটি নতুন ধরন নিয়ন্ত্রণে লড়তে হচ্ছে বিভিন্ন দেশকে। একই সঙ্গে বিশ্বজুড়ে ভাইরাসের প্রকোপ কমিয়ে আনতে বড় আকারে টিকাদানের প্রস্তুতি চলছে।

ওয়ার্ল্ডোমিটার্স জানাচ্ছে, মাত্র ১০ সপ্তাহে বিশ্বজুড়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে। অক্টোবরের শেষ দিকে যেখানে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ছিল সাড়ে চার কোটি, এখন তা পৌঁছেছে নয় কোটির ঘরে। আক্রান্তের সংখ্যায় সবার উপরে থাকা যুক্তরাষ্ট্রে এ পর্যন্ত দুই কোটি ২৩ লাখের বেশি মানুষের মধ্যে এ ভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে। মোট মৃতের সংখ্যাতেও যুক্তরাষ্ট্র সবার চেয়ে এগিয়ে, এ পর্যন্ত সেখানে তিন লাখ ৮৩ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সংক্রমণ সংখ্যায় বিশ্বে দ্বিতীয় ভারত। দেশটিতে এক কোটি সাড়ে চার লাখ করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে দেড় লাখ মানুষের।

আবার, করোনায় মোট মৃতের সংখ্যায় বিশ্বে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে ব্রাজিল। দক্ষিণ আমেরিকার এই দেশটিতে দুই লাখ তিন হাজার মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে করোনা। সরকারি হিসাবে আক্রান্ত হয়েছে আট কোটি ১০ লাখের বেশি মানুষ।

বিজ্ঞাপন

এদিকে, দুই মাস আগে যুক্তরাজ্য থেকে করোনাভাইরাসের যে নতুন ধরনটি ছড়াতে শুরু করেছিল, সেটি মেক্সিকো, ফ্রান্স ও রাশিয়াতেও পৌঁছে গেছে।

এর আগে, ২০১৯ সালের শেষে চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান থেকে নভেল করোনাভাইরাস পুরো বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে এবং পরে তা বৈশ্বিক মহামারিতে পরিণত হয়। ব্যাপক বিধিনিষেধ আরোপের মাধ্যমে চীন সরকার সর্বশেষ এপ্রিলের পর থেকে সংক্রমণ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে রেখেছিল। তবে, ১০ জানুয়ারি চীনে ৮৫ জনের মধ্যে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত করা হয়। যা পাঁচ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ বলে জানিয়েছে বার্তাসংস্থা রয়টার্স।

বিজ্ঞাপন

অন্যদিকে, করোনা সংক্রমণের এই উর্ধ্বগতির মধ্যেই বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনা টিকাদানের গতি বাড়ানোর প্রক্রিয়া চলছে। যুক্তরাজ্যে নতুন করে বড় আকারের কয়েকটি টিকাদান কেন্দ্র চালু করা হচ্ছে। দেশটিতে প্রতিদিন দুই লাখ মানুষকে টিকাদানের আওতায় আনা হচ্ছে। ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সময়ের মধ্যে সবচেয়ে ঝুঁকিতে থাকা নাগরিকদের টিকাদান শেষ করার পরিকল্পনা করছে যুক্তরাজ্য সরকার। সেই লক্ষ্য পূরণ করতে হলে সপ্তাহে ২০ লাখ মানুষকে টিকা দিতে হবে।

সারাবাংলা/একেএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন