বিজ্ঞাপন

আশার আলো পুঁজিবাজারে

January 16, 2021 | 4:09 pm

গোলাম সামদানী, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ঊর্ধমুখী পুঁজিবাজারে নতুন করে আশার আলো দেখছেন বিনিয়োগকারীরা। পুঁজিবাজারে বেশির ভাগ শেয়ারের দাম ও সূচকের ঊর্ধমুখীতে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজার মূলধন প্রথমবারের মতো ৫ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে।

বিজ্ঞাপন

গত ১৪ জানুয়ারি ডিএসইর বাজার মূলধন পুঁজিবাজারের ইতিহাসে সর্বোচ্চ পর্যায়ে ৫ লাখ ১ হাজার ৭০৯ কোটি টাকায় উন্নীত হয়। শুধু তাই নয়, গত দেড় মাসেরও কম সময়ে অর্থাৎ সর্বশেষ ৩০ কার্যদিবসে ডিএসইর বাজার মূলধন বেড়েছে ১ লাখ ৫ হাজার ১৯৭ কোটি ২৮ লাখ টাকা।

ডিএসই‘ সূত্র জানায়, বিদায়ী ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে জুলাই পর্যন্ত পুঁজি হারানোর শঙ্কায় থাকলেও গত আগস্ট মাস থেকে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করে পুঁজিবাজার। বছরের শেষ মাস ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ১৪ জানুয়ারি পর্যন্ত পুঁজিবাজার এতটাই ভালো অবস্থানে রয়েছে, যে ২০১০ সালের মহাধসের পর গত ১০ বছরে এর চেয়ে ভালো অবস্থানে আর দেখা যায়নি।

বিজ্ঞাপন

গত ২ ডিসেম্বর ডিএসই‘র বাজার মূলধন ছিল ৩ লাখ ৯৬ হাজার ৫১২ কোটি ৩৬ লাখ টাকা। মাত্র এক মাস ১৩ দিন বা ৩০ কার্যদিবসের ব্যবধানে গত ১৪ জানুয়ারি তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ১ হাজার ৭০৯ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। এ সময়ের ব্যবধানে বাজার মূলধন বেড়েছে ১ লাখ ৫ হাজার ১৯৭ কোটি ২৮ লাখ টাকা।

সূচক ও গড় লেনদেনও বেড়েছে চোখে পড়ার মতো: গত দেড়মাসে ডিএসইতে বাজার মুলধনের পাশাপাশি বেড়েছে সব সূচক, লেনদেন হওয়া বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম। গত ডিসেম্বর মাসের শুরুতে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ইনডেক্স চার হাজার ৯৩৪ পয়েন্ট। মাত্র দেড়মাসের ব্যবধানে গত ১৪ জানুয়ারি তা বেড়ে ৫ হাজার ৯০৯ পয়েন্টে উন্নীত হয়। এ সময়ে সূচক বেড়েছে ৯৭৫ পয়েন্ট। সূচকের পাশাপাশি একই সময়ে বেড়েছে গড় লেনদেনও। গত নভেম্বর মাস পর্যন্ত ডিএসইতে গড় লেনদেন ৬০০ থেকে ৭০০ কোটি টাকার মধ্যে থাকলেও ডিসেম্বর মাসে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯০০ থেকে এক হাজার কোটি টাকা। চলতি জানুয়ারি মাসে ১৪ দিনে ডিএসইতে গড় লেনদেন হয়েছে প্রায় ২ হাজার কোটি টাকা।

বিজ্ঞাপন

চাঙ্গা পুঁজিবাজার বাড়ছে বিনিয়োগকারী: দীর্ঘ মন্দা কাটিয়ে ২০২০ সালের শেষ দিকে চাঙ্গা হয়ে উঠে পুঁজিবাজার। প্রতিনিয়ত বাড়ছে আর্থিক ও শেয়ার লেনদেন, সব সূচক, বাজার মূলধন। সে সঙ্গে বাজারে প্রবেশ করছে নতুন বিনিয়োগকারী। সিডিবিএল‘র তথ্য অনুসারে ডিসেম্বর মাসের শুরুতে বিও হিসাব ছিল ২৫ লাখ ৮ হাজার ৮৯২টিতে। গত ১৪ জানুয়ারি বিনিয়োগকারীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ২৫ লাখ ৭৬ হাজার ৫৪৬টি। অর্থাৎ গত দেড়মাসে পুঁজিবাজারে নতুন বিনিয়োগকারী বেড়েছে ৬৭ হাজার ৬৫৪ জন।

এ ব্যাপারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ও পুঁজিবাজার বিশ্লেষক অধ্যাপক আবু আহমেদ সারাবাংলাকে বলেন, ‘সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগে কড়াকড়ি এবং ব্যাংক আমানতের সুদের হার কমে যাওয়ায় পুঁজিবাজারের প্রতি মানুষের আগ্রহ বেড়েছে। বিশেষ করে বিকল্প বিনিযোগের সুযোগ কম থাকায় পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ বাড়ছে।’

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, ‘নতুন কমিশন দায়িত্ব নেওয়ার পর তাদের বিভিন্ন ইতিবাচক পদক্ষেপের কারণে পুঁজিবাজারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফিরতে শুরু করেছে। এতে বাজারে প্রতিদিন নতুন নতুন বিনিয়োগকারী প্রবেশ করছে এবং বিও হিসাব বাড়ছে। ফলে ঊর্ধমুখী পুঁজিবাজারে লেনদেন ও বাজার মূলধন বেড়ে যাচ্ছে।’

সারাবাংলা/জিএস/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন