বিজ্ঞাপন

ভিসি কলিমউল্লাহর বিরুদ্ধে ইউজিসির কাছে ১০৮ অভিযোগ

January 18, 2021 | 2:37 pm

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: রংপুরে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহর বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) কাছে ১০৮টি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। নিয়োগের শর্ত ভঙ্গ করে অনুপস্থিতি, নিয়োগ বাণিজ্যসহ নানা দুর্নীতির অভিযোগ তারা করেছেন উপাচার্যের বিরুদ্ধে।

বিজ্ঞাপন

রোববার (১৭ জানুয়ারি) দুপুরে বেরোবি’র জন্য প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন করতে ঢাকা থেকে ইউজিসি’র একটি টিম রংপুর যায়। ওই টিমের সঙ্গে দেখা করে এসব অভিযোগ দাখিল করেন উপাচার্যবিরোধী শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সংগঠন অধিকার সুরক্ষা পরিষদ।

এর আগে, ইউজিসির তদন্ত টিমের সঙ্গে প্রকল্প পরিদর্শনের জন্য উপাচার্য রংপুর অবস্থান করছেন— এমন গুঞ্জন উঠলে রোববার দুপুরে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে সাক্ষাতের জন্য অবস্থান নেন উপাচার্যবিরোধী শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

বিজ্ঞাপন

তবে ইউজিসির তদন্ত টিমের প্রধান অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর হোসেন, সদস্য ফেরদৌস জামান ও দূর্গা রাণী সরকার ক্যাম্পাসে প্রবেশ করলেও উপাচার্য যাননি। পরে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত ৭৩ কোটি ৮৩ লাখ টাকার প্রকল্পে প্রধানমন্ত্রীর নামে ১০ তলা ছাত্রী হল, ড. ওয়াজেদ রিসার্চ ইনস্টিটিউট, স্বাধীনতা স্মারকের কাজ সরেজমিন পরিদর্শন করে ইউজিসির তদন্ত টিম।

পরিদর্শন শেষে তদন্ত কমিটির প্রধান অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর হোসেন সাংবাদিকদের জানান, প্রকল্পগুলোর ডিপিপিতে যেভাবে উল্লেখ ছিল, কার্যাদেশ দেওয়ার পর তা পরিবর্তনের অভিযোগ সরেজমিন পরিদর্শন করে প্রতিবেদন দিতে ইউজিসিকে নির্দেশনা দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

বিজ্ঞাপন

ড. মুহাম্মদ আলমগীর হোসেন বলেন, ‘এর আগে প্রকল্পের কাজের কিছু ব্যত্যয়ের অভিযোগ পেয়েছি। সরেজমিন পরিদর্শন করে যা পেয়েছি তা প্রতিবেদনে দাখিল করা হবে।’

তদন্ত টিমের সদস্য ফেরদৌস জামান বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থা দেখে হতাশা প্রকাশ করেন। ভিসির ধারাবাহিক অনুপস্থিত নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মতো আমরাও চাই ভিসি নিয়োগ শর্ত মেনে ক্যাম্পাসে আসুক।’

বিজ্ঞাপন

বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে তিনি বলেন, ‘মহীয়সী নারী বেগম রোকেয়ার নামে প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের এমন অবস্থা সত্যিই দুঃখজনক।’

এদিকে উপাচার্যের সাক্ষাতের অপেক্ষায় থেকে দেখা না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে অধিকার সুরক্ষা পরিষদের নেতারা।

বিজ্ঞাপন

অধিকার সুরক্ষা পরিষদের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মতিউর রহমান ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘উপাচার্য তার নিয়োগ শর্ত ভঙ্গ করে মাসের পর মাস অনুপস্থিত থাকছেন। আমরা দীর্ঘ ১ বছর থেকে তাকে ক্যাম্পাসে ফেরানোর জন্য সাক্ষাতের চেষ্টা করলেও তিনি এড়িয়ে গেছেন। গত শুক্রবার ক্যাম্পাসে এলেও তিনি কারও সঙ্গে সাক্ষাৎ না করে ঢাকায় চলে যান।’

অধিকার সুরক্ষা পরিষদের সঙ্গে কর্মসূচিতে অবস্থান নেওয়া শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি ড. তুহিন ওয়াদুদ বলেন, ‘ভিসির সঙ্গে দুপুরে দেখা করে সাক্ষাতের সময় চাইলে তিনি দেখা করবেন বলে জানিয়েছেন। কিন্তু আমরা বাসভবনের সামনে সাক্ষাতের অপেক্ষায় থাকলেও তিনি সাক্ষাতের ভয়ে ক্যাম্পাসে আসেননি।’

সারাবাংলা/একে

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন