বিজ্ঞাপন

তরুণ প্রজন্মের সঠিক মূল্যবোধ আছে, চর্চার জায়গা ঠিক করে দিতে হবে

February 7, 2021 | 2:54 pm

শাহীনূর সরকার

ঢাকা: বাংলাদেশের সমাজে মূল্যবোধ মারাত্মকভাবে অবহেলিত বলে মন্তব্য করেছেন পরিবেশ আইনবিদ সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান। তিনি বলেন, তরুণ প্রজন্মের কাছে সঠিক মূল্যবোধ থাকলেও, চর্চার জায়গাটা আমরা ঠিক করে দিতে পারছি না।

বিজ্ঞাপন

শনিবার (৩০ জানুয়ারি) সমসাময়িক বিষয় নিয়ে সারাবাংলা ডটনেটের নিয়মিত আয়োজন সারাবাংলা ফোকাসে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন তিনি। অনুষ্ঠানের ১০০তম এ পর্বের বিষয় ছিল ‘স্বাধীনতার ৫০ বছর এবং আজকের বাংলাদেশ।’

সারাবাংলা ডটনেটের সাংবাদিক এমএকে জিলানীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও যুক্ত ছিলেন কবি ও সাহিত্যিক সোহরাব হাসান, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সাহাব এনাম খান এবং থট মেকারস এর চেয়ারপারসন তাসনুভা আহমেদ।

বিজ্ঞাপন

রিজওয়ানা হাসান বলেন, ‘স্বাধীনতার ৫০ বছরে বাংলাদেশের অনেক উন্নতি হয়েছে। সরকার যেসব জায়গায় বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজ করেছে সেসব জায়গায় অনেক দূর এগিয়েছে বাংলাদেশ ।’ উদাহরণ হিসেবে স্যানিটেশন, ভ্যাকসিনেশন, বাল্যবিবাহের কথা উল্লেখ করেন তিনি।

তবে বাংলাদেশে সাম্যের অনুশীলন হচ্ছে না বলে মনে করেন রিজওয়ানা হাসান। তিনি বলেন, ‘সব গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে মেরে ফেলা হয়েছে। যতক্ষণ পর্যন্ত গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলো ঠিকমতো কাজ না করবে ততদিন পর্যন্ত বাংলাদেশের উন্নয়ন টেকসই হবে না।’

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের মানবিক ও প্রাকৃতিক পরিবেশকে রক্ষা না করলে আমাদের উন্নয়ন কতদিন টিকে থাকবে তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন সোহরাব হোসেন। গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোর ভঙ্গুর অবস্থার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, এ পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসা প্রয়োজন।

রিজওয়ানা হাসান বলেন, ‘বাংলাদেশের অর্জনকে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ধরে রাখার জন্য যা করতে হবে তা আমরা করছি না। আমাদের সকল রাজনৈতিক সরকার নিজস্ব দলীয় সংকীর্ণ স্বার্থে পরিচালিত। সেখানে জনগণের কোনো সুযোগ নেই। এছাড়াও বাংলাদেশের সমাজে মূল্যবোধ মারাত্মকভাবে অবহেলিত। তরুণ প্রজন্মের কাছে সঠিক মূল্যবোধ থাকলেও চর্চার জায়গাটা ঠিক করে দিতে পারছি না।’

বিজ্ঞাপন

মানুষের কথা বলার জায়গা সংকুচিত করে দেওয়া হয়েছে উল্লেখ করে রিজওয়ানা হাসান বলেন, ’জনগণের অধিকারগুলোর কথা আরো বেশি করে বলতে হবে। তরুণ প্রজন্মকে রাজনীতিতে আসতে হবে।’

এ বিষয়ে সোহরাব হাসান বলেন, ‘তরুণরা বাংলাদেশের আন্দোলনগুলোকে নেতৃত্ব দিয়ে সময়কে পাল্টে দিয়েছিল। কিন্তু বর্তমানে তরুণদের রাজনীতিতে আসার পথ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।’

বিজ্ঞাপন

তরুণদের রাজনৈতিক বিমুখ করা কোন গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের কর্তব্য হতে পারে না বলেও মত দেন তিনি।

রাজনৈতিক ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা থাকলে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান আরও ভালো হতে পারত বলে মনে করেন অধ্যাপক সাহাব এনাম খান।

তিনি বলেন, ‘সামাজিক উন্নয়নে বাংলাদেশ পার্শ্ববর্তী দেশের তুলনায় অনেক দূর এগিয়েছে। তবে গুণগত ও টেকসইয়ের দিক থেকে বাংলাদেশের অনেক উন্নতি করার জায়গা আছে।’

এ ছাড়া জননিরাপত্তা না থাকলে সব জায়গাতেই দুর্বলতা থাকবে বলে জানান তিনি। বলেন, ‘পেছন থেকে শিক্ষা নিয়ে সবাই মিলে একসঙ্গে কাজ করেই বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে হবে। কোন ধরনের ভ্রান্ত ধারণা নিয়ে এগুলে চলবে না।’

স্বাধীনতার ৫০ বছরে বাংলাদেশের অবস্থান অনেক ভালো হয়েছে বলে মনে করেন তরুণ প্রজন্মের প্রতিনিধি তাসনুভা আহমেদ। বিভিন্ন সূচকে পার্শ্ববর্তী অনেক দেশ থেকে বাংলাদেশের এগিয়ে থাকার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘পাকিস্তানিরা যে জায়গায় বাংলাদেশকে রেখে গিয়েছিল সে জায়গা থেকে বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়েছে এবং ভালো করছে।’

আলোচনার শেষপর্যায়ে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নের কৃতিত্ব জনগণের। আর তাই স্বাধীনতার ৫০ বছরে বাংলাদেশের মানুষ যদি তার মত প্রকাশ, প্রতিনিধি নির্বাচন অর্থাৎ রাজনৈতিক অধিকার চর্চার  অধিকার ফিরে পায় তাহলেই যারা স্বাধীনতা প্রতিষ্ঠা করেছে তারা সফল হবে।

সারাবাংলা/এসএসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন