বিজ্ঞাপন

‘সন্তানকে ধর্মের মতো করে দেশপ্রেমের শিক্ষা দিন’

February 6, 2021 | 6:02 pm

শাহীনূর সরকার

তরুণ প্রজন্মের মা-বাবাকে তাদের সন্তানদের ধর্মের মতো করে দেশপ্রেমের শিক্ষা দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন বাংলাদেশি-ব্রিটিশ সাহিত্যিক শামীম আজাদ।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (৩ ফেব্রুয়ারি) সমসাময়িক বিষয় নিয়ে সারাবাংলা.নেটের বিশেষ আয়োজন সারাবাংলা ফোকাস অনুষ্ঠানে লন্ডন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানের এবারের পর্বের বিষয় ছিল ‘জীবনের উপলব্ধি’। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সারাবাংলা.নেটের স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট এম এ কে জিলানী।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা ফোকাসে শামীম আজাদ বলেন, ‘তরুণপ্রজন্ম ও শিশুদের দেশের ভালো কথাগুলো বেশি বেশি জানাতে হবে। সেইসঙ্গে পারিবারিক শক্তি ধরে রাখতে তরুণ প্রজন্মের মা-বাবার প্রতি আহবান জানান। তিনি বলেন, পরিবার শক্তিশালী হলে পাড়া, মহল্লাও শক্তিশালী হবে। দেশ আলোকিত হবে।’

প্রত্যেক মা-বাবাই তার সন্তানকে ভালোটা দিতে চান উল্লেখ করে শামীম আজাদ বলেন, ‘দেশ স্বাধীন হওয়ার পরই আমাদের প্রজন্ম অনেকটা ব্যক্তিকেন্দ্রিক হয়ে যায়। আমাদের মেধা থাকা সত্ত্বেও মেধার স্ফুরণ সেভাবে ঘটেনি।’

বিজ্ঞাপন

এছাড়া রাজনীতি, শিল্প-সাহিত্য সব জায়গায় এই ব্যর্থতার দায় আছে উল্লেখ করে বর্তমান প্রজন্মকে অনেক স্বচ্ছ বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

প্রায় তিন দশক ধরে ব্রিটেনে আছেন শামীম আজাদ। একাধারে কবি, সাহিত্যিক ও সাংবাদিক। বহুমুখী প্রতিভার অধিকারি গুণী এই লেখক জানান, তরুণ প্রজন্মের কাছে অনেক বেশি আশা তার। গণজাগরণ মঞ্চ ও সড়ক আন্দোলনে প্রমাণ হয়েছে বাংলাদেশে তারুণ্য আছে এবং তারা প্রয়োজনে বেরিয়ে আসবে। তাই দেশ নিয়ে নেতিবাচক কথা না বলে বেশি বেশি ইতিবাচক কথা বলারও আহবান জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন

শামীম আজাদের ছেলেবেলা কেটেছে জামালপুরে। ছোটবেলায় স্বপ্ন দেখতেন, বড় হয়ে ডুবুরি হবেন। মা-বাবা মননশীল চিন্তাভাবনার কারণেই ষাটের দশকেও তিনি যে শৈশব পেয়েছেন তা পরবর্তী জীবনে এগিয়ে যাওয়ার পাথেয় হয়েছে বলে মনে করেন। বাংলাদেশের নারী উন্নয়ন নিয়ে শামীম বলেন, ‘আমার দেশের যে সামাজিক-সাংস্কৃতিক অবস্থা, সেখানে বিপ্লব করে নারীদের অবস্থা পরিবর্তন করা যাবে না। মেয়েদের ঐতিহ্যের মধ্য দিয়ে গিয়ে প্রধার বাইরে যা আছে তা একটু একটু করে করতে হবে। তাহলেই প্রথা ভাঙবে।’

করোনাকালেও নারী নিয়ে কাজ করেছেন শামীম আজাদ। বলেন, ‘যুদ্ধে ও বিপদে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় নারী। কিন্তু করোনার সময় পুরুষ বুঝতে পেরেছে নারী কত কাজ করে। বয়স্কদের দেখাশুনা থেকে শুরু করে ছেলেমেয়েদের শিক্ষা, এমনকি করোনাও নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে নারীদের মাধ্যমে।’

বিজ্ঞাপন

এদেশে ষাটের দশকের নারীদের আধুনিক জীবনযাপন নিয়ে অনেকেই আফসোস করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা আমাদের সময়কে বদলাতে দেইনি। কিন্তু বর্তমানে নারীরা কেন বদলাতে দিল।’

৩০টিরও বেশি কবিতার বই আছে শামীম আজাদের। এরমধ্যে নারী পরম্পরা নিয়ে লেখা কবিতার বই ‘কইন্যা কিচ্ছা’ অন্যতম। এছাড়া নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ করতে রয়েছে তার প্রকল্প ‘বিজয় ফুল’। মুক্তিযোদ্ধাদের অভিভাকত্বে সেখানে কাজ করছে শত শত তরুণ।

অনেক বছর বিদেশে বসবাস করলেও বাংলাদেশকে কখনো ছাড়েননি শামীম আজাদ। বিদেশের মাটিতে বসেও কাজ করেছেন বাংলাদেশকে নিয়েই। তাই এদেশের মানুষের প্রতি আহবান, আত্মকেন্দ্রিকতা থেকে বেরিয়ে দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য কিছু করার। তাদেরকে নিয়ে চিন্তা করার। তাহলেই বাংলাদেশে টেকসই উন্নয়ন হবে বলে মনে করেন তিনি।

[প্রসঙ্গত, সপ্তাহের শনি, সোম ও বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় সারাবাংলা ফোকাস অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। সারাবাংলা.নেটের ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করা হয় ]

সারাবাংলা/এসএসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন