বিজ্ঞাপন

নেত্রকোনায় দুই পক্ষের সংঘর্ষে পুলিশসহ আহত অর্ধশতাধিক

February 17, 2021 | 9:30 pm

ডিস্ট্রিক্ট করসেপন্ডেন্ট

নেত্রকোনা: মদন উপজেলার পল্লীতে দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশসহ অর্ধশতাধিক আহত হয়েছেন। বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে উপজেলার নায়েকপুর ইউনিয়নের সিংহের বাজারের পাশে গৌরার হাওরে মাখনা ও বাউসা গ্রামবাসীর মধ্যে ঘণ্টাব্যাপী এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

বিজ্ঞাপন

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ১১ রাউন্ড ফাঁকা গুলি চালায়। এসময় আরিফ নামের এক পুলিশ সদস্য আহত হলে তাকে মদন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বর্তমানে এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করায় ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

মদন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুদুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বিজ্ঞাপন

সংঘর্ষে আহত বাউসা গ্রামের মোজাম্মেল ও রুকেলের অবস্থা আশঙ্কাজনক থাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আহত খসরু, সাইদুল, আবু সাহেদ, পায়েল, সবুজ, লুৎফুর রহমান,কেন্তু মিয়া, টিপুল, তাইজুল ইসলাম মাখনা গ্রামের সজুত মিয়া, ইছহাক মিয়া, সাইকুল ইসলাম, সুহেল মিয়া, হেকিমকে মদন ও পাশের উপজেলা তাড়াইল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যরা স্থানীয় পল্লী চিকিৎসকের চিকিৎসাধীন রয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, বাউসা গ্রামের মানিক মিয়া জনতা বাজারের ২ শতাংশ জমি মাখনা গ্রামের ফৌজদার মিয়ার কাছে বিক্রি করে। ফৌজদার মিয়া ওই জমিতে দোকানঘর নির্মাণ করায় গতকাল মঙ্গলবার মানিক মিয়ার টিনসেড, ফৌজদার মিয়া ও শান্তু মিয়ার নব নির্মিত আধাপাকা দোকান ঘর ভেঙে ফেলে বাজার কমিটি ও এলাকাবসী। এ ঘটনায় মাখনা গ্রামের ফৌজদার মিয়ার ছেলে সোহেল খান বাদী হয়ে মঙ্গলবার রাতে ২০ লাখ টাকার ক্ষতিপূরণ দাবি করে বাজার কমিটির সভাপতি আজিজুল হকসহ আটজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা ৫০-৬০ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। এরই জের ধরে বুধবার বিকালে ঘণ্টাব্যাপী এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

বিজ্ঞাপন

ওসি মাসুদুজ্জামান জানান, আমি ঘটনাস্থলে আছি। সংঘর্ষে আমার এক পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ১১ রাউন্ড গুলি চালানো হয়েছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে।

সারাবাংলা/এসএসএ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন