বিজ্ঞাপন

স্বামীর নির্যাতনে মৃত্যুর অভিযোগ, মরদেহ নিয়ে সড়কে বিক্ষোভ

February 22, 2021 | 9:17 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: রাজধানীর ভাটারা এলাকায় স্বামীর নির্যাতনে তানিয়া আক্তার আঁখি (২৬) নামে এক নারীর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। নিহত তানিয়ার মরদেহ নিয়ে কুড়িল বিশ্বরোডের একপাশের সড়ক বন্ধ করে বিক্ষোভ মিছিলও করেন এলাকাবাসী। এলাকাবাসীর বিক্ষোভের মুখে পুলিশ তানিয়ার স্বামী মো. তালহাকে আটক করে। তাকে আইনের আওতায় আনা হবে পুলিশ আশ্বাস দিলে সড়ক থেকে সরে যান বিক্ষোভকারীরা।

বিজ্ঞাপন

সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে মরদেহ নিয়ে যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে কুড়িল বিশ্বরোডে এই বিক্ষোভ মিছিল করেন এলাকাবাসী।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, যৌতুক না পেয়ে স্ত্রী তানিয়াকে নির্যাতনের পর হত্যা করেছেন স্বামী মো. তালহা। তিনি তানিয়ার মরদেহ গুম করতে চেয়েছিলেন। তবে বাড়িওয়ালা বিষয়টি টের পেয়ে যাওয়ায় তিনি মরদেহ গুম করতে পারেননি। এলাকাবাসী তানিয়ার হত্যাকারী স্বামী তালহাকে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে বিক্ষোভ করেছেন।

বিজ্ঞাপন

স্বামীর নির্যাতনে মৃত্যুর অভিযোগ, মরদেহ নিয়ে সড়কে বিক্ষোভ

তানিয়ার চাচা রহিম আহমেদ আকাশ বলেন, তানিয়াকে তার স্বামী তালহা হত্যার পর ঘটনা ভিন্ন খাতে নিতে তানিয়ার চুল কেটে দিয়েছে। হাত ও পা ভেঙে দিয়েছে। তানিয়াকে সকালে হত্যা করলেও বিকেলের দিকে মরদেহ গুম করার জন্য চেষ্টা চালিয়েছে। বস্তায় ভরেছিল মরদেহ। বাড়িওয়ালা টের পেয়ে আশপাশের লোকজন ডেকে ৯৯৯-এ ফোন করেছে। পুলিশ আসার আগেই মরদেহ নিয়ে সড়কে বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী। এরপর পুলিশ এসে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তানিয়ার চাচা জানান, তালহা বারিধারা এলাকায় মানি এক্সচেঞ্জের ব্যবসা করতেন। স্ত্রীকে নিয়ে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার একটি বাসায় থাকতেন। বিয়ের পর তানিয়ার দাদী তালহাকে একটি প্রাইভেট কার কিনে দিয়েছিলেন। সেটি ভাড়ায় চালাতেন তালহা। ব্যবসার জন্য মোটা অঙ্কের টাকাও দিয়েছিলেন। তালহা নেশাগ্রস্ত ছিলেন। যখন যা লাগতম তাই দিতেন তানিয়ার দাদী। দুই বছর আগে তানিয়ার দাদী মারা যান। এরপর তানিয়ার বাবা তালহাকে আর কিছু দেননি। টাকা চেয়ে না পেয়ে প্রায়ই তানিয়াকে নির্যাতন করতেন। শেষ পর্যন্ত আজ মেয়েটাকে মেরেই ফেলেছ।

ভাটারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তারুজ্জামান বলেন, পরিবার ও এলাকাবাসীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে তানিয়ার স্বামী তালহাকে আটক করা হয়েছে। ঘটনা তদন্তে কাজ করছে পুলিশ। তানিয়ার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের মর্গে নেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/ইউজে/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন