বিজ্ঞাপন

জাতীয় দলের দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ালেন ভাস

February 23, 2021 | 1:40 pm

স্পোর্টস ডেস্ক

শ্রীলংকান কিংবদন্তি পেসার চামিন্দা ভাস এই তো দিন তিনেক আগেই দায়িত্ব নিয়েছিলেন জাতীয় দলের বোলিং কোচের। আর সোমবার এসে ঘোষণা দিলেন দায়িত্ব ছাড়ছেন জতীয় দলের বোলিং কোচের। এর পেছনের কারণ হিসেবে ভাস জানিয়েছেন তাকে দেওয়া কথা রাখেনি বোর্ড। আর তাই দায়িত্ব গ্রহণের তিন দিনের মাথায় নিজে থেকেই সরে দাঁড়ালেন ভাস।

বিজ্ঞাপন

নিজের ব্যক্তিগত টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে একটি ক্ষুদে বার্তায় ভাস জানান, 'আমি বোর্ডের কাছে বিনীতভাবে একটি অনুরোধ করেছিলাম। কিন্তু তারা সেটা রাখেনি। এ মুহূর্তে আমি শুধু এটুকুই বলতে পারি। ন্যায় অবশ্যই মিলবে’- শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের বোলিং কোচ হওয়ার তিনদিনের মাথায় নিজের টুইটার প্রোফাইলে এ বার্তা দিয়েছেন কিংবদন্তি বাঁহাতি পেসার চামিন্দা ভাস।

এদিকে ভাস নিজে চাকরি থেকে সরে দাঁড়ানোর কারণ খোলাসা না করলেও খোলাসা করেছে লংকান ক্রিকেট বোর্ড। তারা জানিয়েছে পারিশ্রমিক প্রসঙ্গে মতের মিল না হওয়ার কারণেই মূলত চাকরি ছেড়ে দিয়েছেন ভাস। করোনাকালীন সময়ে একটি সফরের আগ দিয়ে ভাসের এমন সিদ্ধান্ত দেশের ক্রিকেটকে জিম্মি করে রাখার শামিল বলে মনে করছে লংকান বোর্ড।

বিজ্ঞাপন

গেল বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) লংকান দলের বোলিং কোচের দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ করেন ডেভিড সাকের। আর এর একদিন পর শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) লংকান দলের বোলিং কোচের দায়িত্ব গ্রহণ করেন চামিন্দা ভাস। অর্থাৎ মাত্র তিন দিনের ব্যবধানেই চাকরি ছাড়লেন ভাস।

ভাসের এমন সিদ্ধান্তের পর হতাশা প্রকাশ করে লংকান ক্রিকেট বোর্ড এক বিবৃতি দিয়েছে। সেখানে তারা জানিয়েছে,'পুরো বিশ্ব যখন অর্থনৈতিক সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, তখন ভাস ব্যক্তিগত আর্থিক লাভের চিন্তা থেকে দল দেশ ছাড়ার আগ মুহূর্তে হুট করে দায়িত্বজ্ঞানহীন এক সিদ্ধান্ত নিলেন, যা খুবই হতাশাজনক।’

বিজ্ঞাপন

দেশটির ক্রিকেট বোর্ড আরও জানিয়েছে, ‘এসএলসি ম্যানেজমেন্ট এবং পুরো জাতি ভাসকে ক্রিকেটার হিসেবে সম্মান করেছে। তিনি দেশের হয়ে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছেন। তার অবদান বছরের পর বছর ধরে প্রশংসিত হয়েছে। এটা খুবই হতাশাজনক যে এমন পরিস্থিতিতে চামিন্দা ভাসের মতো কিংবদন্তি শেষ সময়ে পদত্যাগপত্র জমা দিয়ে প্রশাসন, ক্রিকেটার, প্রকৃতপক্ষে ক্রিকেটকে জিম্মি করেছেন। পারিশ্রমিক বাড়ানোর তার অযৌক্তিক দাবি প্রশাসন গ্রহণ করেনি। তিনি এখনও অভিজ্ঞতা, যোগ্যতা ও দক্ষতার বিচারে পারিশ্রমিক পাচ্ছেন। এছাড়াও তিনি ভ্রমণকারী দলের সকল সদস্যকে দেওয়া প্রতি ডলারের একটি অংশ পেতেন।’

এবারই অবশ্য প্রথমবারের মতো জাতীয় দলের বোলিং কোচের দায়িত্ব নেননি ভাস। এর আগেও তিন দফায় লংকান দলের বোলিং কোচ ছিলেন তিনি। ২০১৩, ২০১৫ এবং ২০১৭ সালে নিজ দেশের বোলিং কোচের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এছাড়াও শ্রীলংকার হাই-পারফরম্যান্স সেন্টারে পেস বোলিং কোচ ছিলেন তিনি। সেখানে কাজ করেছেন ইমার্জিং দল ও জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের সঙ্গে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন