বিজ্ঞাপন

স্কুল খুলতে থোক বরাদ্দ প্রয়োজন: দেবপ্রিয়

February 23, 2021 | 3:40 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: শহর অঞ্চলের স্কুলগুলো যতখানি প্রস্তুত, চর হাওর পাহাড়ী অঞ্চলের স্কুলগুলো ততোটা প্রস্তুত নয়। স্কুল খোলার ক্ষেত্রে যন্ত্রপাতি কেনার জন্যে এককালীন একটি থোক বরাদ্দ রাখতে হবে। শিক্ষার্থীদের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে মাস্কের ব্যবস্থা রাখতে হবে। স্কুলে সার্বজনীনভাবে দুপুরের খাওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) এসডিজি বাস্তবায়নে নাগরিক প্ল্যাটফর্ম আয়োজিত 'অবশেষে স্কুল খুলছেঃ আমরা কতখানি প্রস্তুত?' শীর্ষক ভার্চুয়াল নাগরিক সংলাপে এসব দাবি উঠে এসেছে।

সিপিডির সম্মানীয় ফেলো ও এসডিজি বাস্তবায়নে নাগরিক প্ল্যাটফর্মের আহ্বায়ক ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, স্কুল খোলার ব্যাপারে একটা বড় ধরনের ঐক্যমত রয়েছে। তবে একটা মিশ্র চিত্র উঠে এসেছে। শহর অঞ্চলের স্কুলগুলো যতখানি প্রস্তুত চর হাওর পাহাড়ী অঞ্চলের স্কুলগুলো ততোটা প্রস্তুত নয়।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, স্কুল খোলার ব্যাপারে প্রস্তুতির ক্ষেত্রে একটা প্রণোদনার প্রস্তাব রয়েছে। মাস্ক কেনার ব্যপারে উদ্যোগ থাকতে হবে। স্কুলে দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা থাকতে হবে। অটোপাসকে আগামীতে আমরা কিভাবে মোকাবিলা করবো সেক্ষত্রে সিলেবাস সংকোচ করতে হবে। শিক্ষা ব্যবস্থার নাজুক চিত্র উঠে এসেছে তা দূর করে গুণগত শিক্ষা ব্যবস্থা প্রবর্তন করতে সরকারকে সব রকমের ব্যবস্থা নিতে হবে।

এতে আরও বক্তব্য রাখেন ব্রাকের ইমেরিটাস অধ্যাপক ও এডুকেশন ওয়াচের প্রধান গবেষক, গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধুরী, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক প্রফেসর ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক, ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর নেহাল আহমেদসহ আরও অনেকে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/ইএইচটি/এএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন