বিজ্ঞাপন

মিয়ানমারে শিক্ষার্থী-চিকিৎসকদের বিক্ষোভ কর্মসূচি

February 25, 2021 | 5:01 pm

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

মিয়ানমারে সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন দেশটির শিক্ষার্থী এবং চিকিৎসকরা। বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) দেশটির বৃহত্তম শহর ইয়াঙ্গুনে সমাবেশ করছেন শিক্ষার্থীরা। তারা সামরিক শিক্ষা প্রচারকারী টেক্সট বই সঙ্গে নিয়ে এসে প্রতিবাদস্থলে সেগুলো ধ্বংস করছেন। দেশটির বিভিন্ন পেশাজীবী এবং সরকারি কর্মচারীরাও সিভিল ডিজঅবেডিয়েন্স মুভমেন্টে (সিডিএম) যোগ দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

এছাড়াও, হোয়াইট কোট বিপ্লবের অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার চিকিৎসকদেরও একটি প্রতিবাদ আয়োজনের কথা রয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

বিজ্ঞাপন

এ ব্যাপারে মিয়ানমার থেকে প্রকাশিত দ্য ইরাবতি জানিয়েছে, বিক্ষোভকারীদের বিভিন্ন পয়েন্টে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ব্যারিকেড দিয়ে গণতন্ত্রপন্থিদের জমায়েতে বাধার সৃষ্টি করছে।

এদিকে মালয়েশিয়া বুধবার মিয়ানমারের প্রায় ১১০০ নাগরিককে দেশে ফেরত পাঠানোয় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ফেরত পাঠানো এসব নাগরিকরা শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) মিয়ানমার পৌঁছবেন বলে দেশটির নৌবাহিনীর ফেসবুক পেইজের এক পোস্টে বলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

মিয়ানমারের ৮ নভেম্বরের সাধারণ নির্বাচনে অং সান সু চির নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্র্যাসি (এনএলডি) বড় জয় পেয়েছিল। কিন্তু নির্বাচনে জালিয়াতি করা হয়েছে অভিযোগ করে চলতি মাসের শুরুতে এনএলডিকে হটিয়ে সেনাবাহিনী ক্ষমতা দখল করে নেয় এবং সু চিসহ দলটির শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে বন্দি করে। তারপর থেকে তিন সপ্তাহ ধরে দেশটিতে প্রতিদিন সামরিক শাসন বিরোধী প্রতিবাদ অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) অধিকার আন্দোলনকারী একটি গ্রুপ জানিয়েছে, প্রতিবাদে অংশ নেওয়ায় ৭২৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এর আগে মিয়ানমার প্রায় অর্ধ শতাব্দী ধরে সরাসরি সামরিক শাসনাধীনে ছিল। ওই সময় গণতন্ত্রের জন্য আন্দোলনকারীদের নির্মমভাবে দমন করা হয়েছিল। সেই তুলনায় এবার দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীগুলো অনেক সংযতভাবে প্রতিবাদ মোকাবেলা করছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

প্রতিবাদ মোকাবিলায় কর্তৃপক্ষ গণতান্ত্রিক পথ অনুসরণ করছে এবং পুলিশ ন্যূনতম শক্তি ব্যবহার করছে, চলতি সপ্তাহে দেশটির সামরিক বাহিনী প্রধান জেনারেল মিন অং হ্লাইং এমনটি বলেছেন বলে রাষ্ট্রায়ত্ত গণমাধ্যমের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তারপরও প্রতিবাদ সমাবেশগুলোকে ঘিরে সহিংসতায় এ পর্যন্ত তিন গণতন্ত্রপন্থি এবং একজন পুলিশ প্রাণ হারিয়েছেন।

সারাবাংলা/একেএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন