বিজ্ঞাপন

মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষা ঈদের পরে চান ভর্তিচ্ছুরা

March 4, 2021 | 9:05 pm

ঢাবি করেসপন্ডেন্ট

২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিস কোর্সের প্রথম বর্ষে ভর্তি পরীক্ষা আগামী ঈদুল ফিতরের পর নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন মেডিকেল ভর্তিচ্ছুরা। ২ এপ্রিল পরীক্ষা গ্রহণ করলে নিজেদের ও অভিভাবকদের জীবন ঝুঁকিতে পড়বে বলে দাবি তাদের।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে অনুষ্ঠিত এক মানবন্ধন থেকে তারা এই দাবি জানান।

‘২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার্থীবৃন্দ’ শীর্ষক ব্যানারে আয়োজিত মানববন্ধন থেকে ভর্তি বিষয়ক জটিলতা নিরসনে দেশের বাকি সব উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সমতা বিধান করে ২ এপ্রিলের পরিবর্তে ঈদুল ফিতরের পর মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেওয়ার দাবি জানান শিক্ষার্থীরা। এছাড়া পরীক্ষা আয়োজনের আগে পরীক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন দেওয়ার প্রক্রিয়া নিশ্চিত করার দাবিও জানান।

বিজ্ঞাপন

মানবন্ধনে বক্তারা বলেন, অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সঙ্গে সমতা না রেখে ২ এপ্রিল ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হলে একাডেমিক ক্ষেত্রেও দেখা দিতে পারে বহুবিধ সমস্যা। এতে বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলোতে ভর্তি বিষয়ক জটিলতা তৈরি হবে। ২ এপ্রিল পরীক্ষা আয়োজিত হলে তিন-চার দিনের মধ্যে প্রকাশিত হবে ফল। তার এক থেকে দুই মাসের মাথায় সম্পন্ন হবে সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলোর ভর্তি কার্যক্রম। অনেক শিক্ষার্থীর ইচ্ছা থাকে, যদি কোনো কারণে সরকারি মেডিকেল কলেজে পড়ালেখা করার সুযোগ না মেলে, তবে সে বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের জীববিজ্ঞান অনুষদ পড়বে। আর যদি তারও সুযোগ না হয়, তবে সে ভর্তি হবে কোনো বেসরকারি মেডিকেল কলেজে।

অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সঙ্গে মিল না রেখে আগেই মেডিকেলের ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে নিলে শিক্ষার্থীরা সিদ্ধান্তহীনতায় পড়বেন জানিয়ে তারা বলেন, মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে এমন সময়-বৈষম্যের কারণে এবার এমন একসময়ে সব বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তি কার্যক্রম শেষ হয়ে যাবে, যখন কি না দেশের নানা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা শুরুই হয়নি।

বিজ্ঞাপন

‘তাহলে কিভাবে একজন শিক্ষার্থী সিদ্ধান্ত নেবে যে সে কি লাখ লাখ টাকা খরচ করে আগেই বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তি হয়ে যাবে, নাকি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভর্তি পরীক্ষার জন্য দুই মাস অপেক্ষা করবে? আর যদি দুই মাস অপেক্ষা করার পর পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ না হয়, তখন তার কাছে বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগও আর থাকবে না,’বলেন মেডিকেলে ভর্তিচ্ছুরা।

সারাবাংলা/আরআইআর/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন