বিজ্ঞাপন

৪১২৩ কোটি টাকায় হচ্ছে ৩০ হাজার বীরনিবাস

March 7, 2021 | 8:17 am

জোসনা জামান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে বাড়ি পাবেন ৩০ হাজার অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধা। প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে ‘বীরনিবাস’গুলো দেওয়া হবে তাদের। এ লক্ষ্যে ‘অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আবাসন নির্মাণ’ নামের একটি প্রকল্প হাতে নিচ্ছে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়। এটি বাস্তবায়িত হলে দেশের অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধা, শহিদ বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বিধবা স্ত্রী ও সন্তানদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন হবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ হাজার ১২২ কোটি ৯৮ লাখ টাকা।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে পরিকল্পনা কমিশনের একাধিক কর্মকর্তা সারাবাংলাকে বলেন, প্রকল্পটি প্রস্তাব পাওয়ার পর গত বছরের ১৫ নভেম্বর  প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় দেওয়া সুপারিশগুলো বাস্তবায়ন করে উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) পুনর্গঠন করা হয়েছে। এটি এখন জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) আগামী সভায় উপস্থাপন করা হবে। অনুমোদন পেলে চলতি বছর থেকে ২০২৩ সালের মধ্যে  প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উন্নয়ন অনুবিভাগের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা সারাবাংলাকে বলেন, ‘অনুমোদন পেলে এটি হবে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অন্যতম একটি অন্যতম প্রকল্প। এর মাধ্যমে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আবাসনের ব্যবস্থা করা সম্ভব হবে।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এই প্রকল্পের পর আরও বীর নিবাস তৈরি হবে কিনা সেটি এই মুহূর্তে বলা যাচ্ছে না। এটি সরকারের সিদ্ধান্তের বিষয়।’

বিজ্ঞাপন

সূত্র জানায়, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দূরদর্শী নেতৃত্বে ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত স্বাধীনতা এই জাতির ইতিহাসে শ্রেষ্ঠ অর্জন। জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধারা দেশকে মুক্ত করার জন্য নিজের জীবনকে বাজি রেখে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। কিন্তু বীর মুক্তিযোদ্ধারা আজও অনেকেই অর্থনৈতিক ও সামাজিক মুক্তির স্বাদ লাভ করতে পারেননি। মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জীবনযাত্রার মানন্নোয়নের জন্য সরকারের বহুমাত্রিক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে ‘অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আবাসন’ শীর্ষক প্রকল্পটির প্রস্তাব করা হয়েছে।

পরিকল্পনা কমিশনের মতামত দিতে গিয়ে কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য মামুন-আল-রশিদ বলেন, ‘প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে দেশের অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধা, শহিদ বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বিধবা স্ত্রী ও সন্তানদের সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধি পাবে। এ জন্য মুজিববর্ষ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে তাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে উপহার হিসেবে ৩০ হাজার বীর নিবাস নির্মাণ করে দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী।’

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/জেজে/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন