বিজ্ঞাপন

কাশ্মিরের রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠাবে ভারত

March 8, 2021 | 3:39 pm

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

জম্মু ও কাশ্মির অঞ্চলে অবৈধভাবে বসবাস করা দেড়শ’র বেশি রোহিঙ্গাকে আটক করেছে ভারতের পুলিশ। তাদেরকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া ‍শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। খবর রয়টার্স।

বিজ্ঞাপন

রোববার (৭ মার্চ) নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভারতের দুই কর্মকর্তা বলেন, বেশ কয়েকজন রোহিঙ্গাকে জম্মুর হিরা নগর কারাগারের অস্থায়ী ক্যাম্পে রাখা হয়েছে।

স্থানীয় কর্তৃপক্ষ অবৈধ বাসিন্দাদের খুঁজে বের করতে কয়েকশ মানুষের বায়োমেট্রিক এবং অন্যান্য পরীক্ষার মাধ্যমে তাদের পরিচয় শনাক্ত করেছে।

বিজ্ঞাপন

এক কর্মকর্তা বলেন, বৈধ কাগজপত্র ছাড়া জম্মুতে বসবাসকারী বিদেশিদের খুঁজে বের করার অংশ হিসেবেই এ অভিযান চালানো হয়েছে।

পাশাপাশি, তারা ওই শরণার্থীদের ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছেন বলেও জানিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

এর আগে, ২০১৯ সালের আগস্টে মোদি সরকার জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের বিশেষ সাংবিধানিক মর্যাদা প্রত্যাহার করে নিয়ে কেন্দ্রশাসিত দুইটি আলাদা অঞ্চলে বিভক্ত করে। আর ২০১৭ সালে মিয়ানমার সেনাবাহিনী দেশটির রোহিঙ্গা অধ্যুষিত রাখাইন রাজ্যে অভিযান শুরু করলে ১১ লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে প্রতিবেশী বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। সেই সময় অল্প সংখ্যক রোহিঙ্গা শরণার্থী অন্যান্য দেশেও আশ্রয় নিয়েছিলেন।

তবে, জম্মুতে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গারা তাদেরকে আটক এবং দেশে ফেরত পাঠানো নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। এমন একজন ২৮ বছর বয়সী সুফিরা। তিনি রয়টার্সকে বলেন, তাদের দেশে শান্তি ফিরে এলেই তারা চলে যাবেন। সুফিরার চাচা এবং ভাইকে পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে। ফলে সন্তানদের নিয়ে একলা পড়ে গেছেন এই নারী।

বিজ্ঞাপন

আরেক রোহিঙ্গা শরণার্থী ৪৮ বছর বয়সী সাদিক বলেন, তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের ধরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তাদেরকে বলা হয়েছে, ফেরত পাঠানো হবে। তার বাবা-মাকে ধরে নিয়ে গেছে। সেখানে কে তাদের দেখভাল করবে? সে বিষয়েও প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।

অন্যদিকে, ভারত রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত পাঠিয়ে আন্তর্জাতিক শরণার্থী নীতির লঙ্ঘন করছে বলে মনে করে জাতিসংঘ। আন্তর্জাতিক শরণার্থী নীতিতে শরণার্থীদের জোর করে এমন জায়গায় পাঠানো যাবে না যেখানে তাদের উপর প্রাণনাশের ঝুঁকি থাকে। ভারত অবশ্য জাতিসংঘের এ অবস্থানের তোয়াক্কা করছে না।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/একেএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন