বিজ্ঞাপন

ফ্রান্সে শিক্ষক খুন এবং শিক্ষার্থীর ‘মিথ্যাচার’

March 9, 2021 | 11:04 am

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

২০২০ সালের ১৬ অক্টোবর ফ্রান্সের স্কুলশিক্ষক স্যামুয়েল প্যাটিকে শিরশ্ছেদ করে খুন করে ১৮ বছর বয়সী এক চেচেন শরণার্থী আব্দুল্লাখ আজোনভ। মহানবি হযরত মুহাম্মাদের ব্যঙ্গচিত্র ক্লাসে প্রদর্শনের মাধ্যমে অবমাননা করার প্রতিশোধ হিসেবে এই হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা যায়।

বিজ্ঞাপন

তার কয়েকদিন আগে, ওই স্কুলের একজন শিক্ষার্থী সাইবারস্পেসে জানিয়েছিল, যে ক্লাসে স্যামুয়েল মহানবির ব্যঙ্গচিত্র দেখিয়েছিলেন; সেই ক্লাসে সে নিজেও উপস্থিত ছিল।

পরে, ওই ছাত্রীর বাবা আদালতে স্যামুয়েলের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দাখিল করেন এবং অনলাইনে নাম উল্লেখ করে ঘৃণামিশ্রিত প্রচারণা শুরু করেন। তার ওই মামলা এবং প্রচারণার প্রেক্ষিতেই স্যামুয়েলকে হত্যা করা হয় বলে তদন্তকারীরা জানিয়েছিলেন।

বিজ্ঞাপন

এক্ষেত্রে, অভিযোগের মূল ভিত্তি ছিল প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে ওই স্কুলছাত্রীর বর্ণনা।

কিন্তু, সোমবার (৮ মার্চ) ওই স্কুলছাত্রীর আইনজীবী বার্তা সংস্থা এএফপি’কে জানিয়েছেন, ওই শিক্ষার্থী সেই সময় তার সহপাঠীদের চাপে মুখপাত্রের ভূমিকা নিতে গিয়ে মিথ্যাচার করেছিল।

বিজ্ঞাপন

আসলে, স্যামুয়েল প্যাটির ফ্রিডম অব স্পিচ এবং ব্লাসফেমি সংক্রান্ত সেই লেকচারে হাজির ছিল না ওই ছাত্রী। কারণ, কেউ আঘাতপ্রাপ্ত হতে পারে এমন আশঙ্কা থেকে ওই শিক্ষক লেকচার শুরু আগেই শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ করা বা না করার স্বাধীনতা দিয়ে রেখেছিলেন; সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে ১৩ বছর বয়সী ওই মুসলিম শিক্ষার্থী লেকচার শোনা থেকে বিরত ছিলেন।

স্যামুয়েল প্যাটির মৃত্যুতে ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয় শোক পালন করা হয় এবং মুক্তমত প্রকাশের ব্যাপারে আরও দৃঢ় অবস্থান ব্যক্ত করেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট। তার জবাবে, ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের কয়েকটি গ্রুপ ওই হত্যাকাণ্ডকে বৈধ ঘোষণাসহ ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে লাগাতার বিক্ষোভ দেখায়। আরব, মধ্যপ্রাচ্য এবং এশিয়া অঞ্চলের মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ কয়েকটি দেশ থেকে ফরাসি পণ্য বর্জনের ডাক দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/একেএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন