বিজ্ঞাপন

দেশে বসেই বিদেশি বন্ধু সেজে হাতিয়েছে ৮৮ লাখ টাকা

March 10, 2021 | 3:32 pm

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দেশে বসেই বিদেশি বন্ধু সেজে অনলাইনের মাধ্যমে ৮৮ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে একটি চক্রে। চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জার, হোয়াটসঅ্যাপসহ বিভিন্ন অনলাইনে প্রতারণা করে আসছিল। তবে শেষ পর্যন্ত একজন ভুক্তভোগীর সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে চক্রের চার সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) একটি দল।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (১০ মার্চ) দুপুরে রাজধানীর মালিবাগের সিআইডি প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ ওমর ফারুক প্রতারণা ও প্রতারকদের গ্রেফতারের বিষয়ে জানান।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- সাইফুল ইসলাম আরিফ (৩২), ওমর ফারুক রনি (৪০), আনিছুর রহমান (২৬) এবং শহিদুল ইসলাম সোহেল (৩৬)।

বিজ্ঞাপন

সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ ওমর ফারুক বলেন, ‘আতিকুর রহমান (৪১) নামে একজন ভুক্তভোগীর দেওয়া অভিযোগের ভিত্তিতে সিআইডি ঢাকা মেট্রো দক্ষিণের একটি দল অভিযান চালিয়ে মঙ্গলবার (৯ মার্চ) ঢাকার ক্যান্টনমেন্টের মানিকদি ও নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে প্রতারক চক্রের চার সদস্যকে গ্রেফতার করেছে। চক্রের সদস্যরা ডিজিটাল মাধ্যম ব্যবহার করে প্রতারণা করে আসছিল।’

তিনি বলেন, ‘ভুক্তভোগী আতিকুর রহমানকে বিদেশি পরিচয় দিয়ে ফেসবুকের মাধ্যমে বন্ধুত্ব করে চক্রটি। বন্ধুত্বের এক পর্যায়ে তারা বাংলাদেশি বন্ধুকে উপহার হিসেবে পার্সেলের মাধ্যমে কিছু ইউএস ডলার পাঠানোর কথা বলে। এতে আতিকুর রহমান সম্মতি দেয়। সম্মতি পেয়ে তারা সেটি বিমানবন্দরে পাঠানোর কথা বলে।’

বিজ্ঞাপন

সিআইডির কর্মকর্তা বলেন, ‘পরবর্তী সময়ে তাদের সহযোগী কাস্টমস অফিসার পরিচয় দিয়ে আতিকুর রহমানকে ফোনে পার্সেল আসার কথা বলে। এছাড়া সে জানায় যে, পার্সেল স্ক্যান করে বিপুল পরিমাণ ইউএস ডলার পাওয়া গেছে। এক পর্যায়ে তারা পার্সেল সংগ্রহ, লিগালাইজেশন, ইন্টারন্যাশানাল মর্টগেজের কথা বলে ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে ৬ লাখ ৭৩ হাজার টাকা দাবি করে। আতিকুর সেই টাকা ব্যাংকে পাঠালে চক্রটি তা আত্মসাৎ করে ‘

ওমর ফারুক জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা অপরাধ স্বীকার করেছে। এছাড়া পলাতক অপর আসামি হারুন অর রশিদ কামাল, জসিম সিকদার, হৃদয় আহমেদ, মহসিন, ওসমান গণি, আয়েশা আক্তার রত্না, রেহানা আক্তার, মাহমুদুল হাছান, হালিম, কাউছার হাসানসহ অজ্ঞাত দেশি-বিদেশি আরও কয়েকজন ঘটনার সঙ্গে জড়িত বলে জানায় গ্রেফতারকৃতরা।

বিজ্ঞাপন

গ্রেফতারকৃতরা জিজ্ঞাসাবাদে সিআইডিকে জানায়, তারা ভুক্তভোগী আতিকুর রহমান ছাড়াও আরও বেশ কয়েকজনের কাছ থেকে যৌথ ব্যবসার মূলধন সংগ্রহ ও বিদেশে চাকুরি দেওয়ার নামে প্রায় ৮২ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে।

তাদের বিরুদ্ধে মতিঝিল ও লালবাগ থানায় পেনাল ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা দুটি মামলা অধিকতর তদন্ত চলছে বলে জানিয়েছেন সিআইডির অতিরিক্ত ডিআইজি।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসএইচ/পিটিএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন