বিজ্ঞাপন

হিলিতে কমেছে পেঁয়াজের আমদানি, বেড়েছে দাম

April 7, 2021 | 9:39 am

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট

হিলি (দিনাজপুর): ভারত সরকার পেঁয়াজ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের পর পেঁয়াজের আমদানি শুরু করে দেশের আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান গুলো। তবে দেশের পেঁয়াজ চাষীদের ক্ষতির কথা চিন্তা করে আমদানিতে আইপি (ইমপোর্ট পারমিট) বন্ধ করে দেয় বাংলাদেশ সরকার। আর এতে করে আগে করা আইপি দিয়ে গেলো মাসে পেঁয়াজ আমদানি শুরু করে হিলি স্থলবন্দরের বেশ কিছু আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান।

বিজ্ঞাপন

আর আমদানির ফলে স্থানীয় খুচরা বাজারে কমে যায় দাম। প্রতিকেজি পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ২০ থেকে ২২ টাকা কেজি দরে। তবে সম্প্রতি আইপি সংকটের অজুহাতে হিলি স্থলবন্দরে কমেছে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি। আর চাহিদার তুলনায় আমদানি কমে যাওয়ায় একলাফে আট টাকা বেড়ে ২৭-২৮ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ। আমদানি সংকটের কথা বলে রমজানের আগে হঠাৎ করে দাম বেড়ে যাওয়ায় খানিকটা বিপাকে পড়েছেন পাইকার ও সাধারণ ক্রেতারা।

হিলি স্থলবন্দরের বেশ কয়েকজন আমদানিকারক জানান, রমজান মাসে দেশের বাজারে পেঁয়াজের সরবরাহ ঠিক ও কম দামে ভোক্তাদের দিতেই আমরা আগের আইপি দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি শুরু করি। তবে আইপি আমাদের শেষের দিকে এ জন্য আমদানি কমে যাচ্ছে। যেখানে কয়েকদিন আগে এই বন্দরে ২০ থেকে ২৫ ট্রাক পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে। এখন সেখানে আমদানি হচ্ছে ২টি, ৩টি করে। চাহিদার তুলনায় সরবরাহ কমে যাওয়ায় দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে সরকার আইপি খুলে দিলে আবারও পেঁয়াজের আমদানি বাড়বে, একইসঙ্গে বাজারে দামও কমে আসবে।

বিজ্ঞাপন

রাসেল নামের এক পাইকার জানান, হিলি স্থলবন্দর থেকে পেঁয়াজ কিনে দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করেন তিনি। হঠাৎ করে আমদানি কমে যাওয়ায় দাম বেড়েছে। আর দাম বাড়ার কারণে বিপাকে পড়তে হচ্ছে। চাহিদার তুলনায় সরবরাহ করা যাচ্ছে না।

এদিকে খুচরা বাজারে পেঁয়াজ কিনতে আসা রাশেদুলসহ বেশ কয়েকজন বলেন, রমজানের আগে প্রতি বছর পেঁয়াজের দাম বাড়ে। এবারও বেড়েছে, পেঁয়াজ কিনতে এসে আমাদের বিপাকে পড়তে হচ্ছে। বাজার নিয়ন্ত্রণের জন্য প্রশাসনের কাছে অনুরোধ জানান তারা।

বিজ্ঞাপন

হিলি কাষ্টমসের তথ্যমতে, গত দুই দিনে ভারতীয় পাঁচ ট্রাকে ১২৫ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে এই বন্দর দিয়ে।

সারাবাংলা/এনএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন