বিজ্ঞাপন

কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে নিহত ৫, নিজের কর্মী দাবি তৃণমূলের

April 10, 2021 | 12:07 pm

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

ভারতের কোচবিহারে বিজেপি ও তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের সংঘর্ষের মধ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে পাঁচজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও চারজন। নিহতরা সকলেই তাদের সমর্থক বলে দাবি করেছে তৃণমূল।

বিজ্ঞাপন

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনে চতুর্থ দফার ভোটগ্রহণ চলাকালে শীতলকুচির জোড়পাটকির ১২৬ নম্বর বুথের বাইরে এই ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় তৃণমূল কর্মীদের অভিযোগ, সিআরপিএফ জওয়ানরা বিজেপির হয়ে কাজ করছে। রাতভর মদ-মাংস খেয়ে সকালে নির্বিচারে গুলি চালিয়েছে। সুষ্ঠ নির্বাচন করানোর ভার যাদের কাঁধে, তাদের নির্বিচারে গুলি চালানোর অধিকার কে দিয়েছে, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে জোড়াফুল শিবির।

বিজ্ঞাপন

এক তৃণমূল কর্মীর বরাত দিয়ে আনন্দবাজার জানিয়েছে, দলে দলে মানুষ ভোট দিতে যাচ্ছিলেন। সেই সময় বিনা প্ররোচনায় গুলি চালায় কেন্দ্রীয় বাহিনী। বুথের ভিতরে যে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন ছিল, তারাই এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ করে তৃণমূল।

কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে নিহত ৫, নিজের কর্মী দাবি তৃণমূলের

বিজ্ঞাপন

অন্যদিকে বিজেপি নেতা নিশীথ প্রামাণিক গোটা ঘটনার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দায়ী করেছেন। তার বক্তব্য, কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে যেভাবে লাগাতার উস্কানিমূলক মন্তব্য করছেন মমতা, তার জন্য মানুষ কেন্দ্রীয় বাহিনীকে আক্রমণ করে। তাতেই গুলি চালাতে বাধ্য হয়েছে সিআইএসএফ।

আরও পড়ুন: পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনে চতুর্থ দফার ভোটগ্রহণ চলছে

বিজ্ঞাপন

শনিবার (১০ এপ্রিল) সকালে চতুর্থ দফায় ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার পর থেকে দফায় দফায় শীতলকুচিতে সঙ্ঘর্ষ বেধেছে তৃণমূল এবং বিজেপি সমর্থকদের মধ্যে। সকালে পাঠানটুলি শালবাড়ির ২৮৫ বুথে ভোট দিতে গিয়ে আনন্দ বর্মণ নামের এক ১৮ বছরের কিশোরের মৃত্যু হয়।

কোচবিহারের পুলিশ সুপার দেবশীষ ধর জানান, এই ঘটনায় দুইজনকে আটক করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এপিবি আনন্দের খবরে বলা হয়, গোটা ঘটনার বিস্তারিত অ্যাকশন টেকেন রিপোর্ট চেয়েছে নির্বাচন কমিশন। নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা নিরাপত্তা বাহিনী গুলি চালিয়েছে বলে জানাল তারা। কেন তাদের গুলি চালাতে হল তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

নির্বাচনে উত্তরবঙ্গের কোচবিহার জেলার ৯ এবং আলিপুরদুয়ারের ৫টি বিধানসভা আসনের সব কয়টিতেই ভোটগ্রহণ চলছে। এছাড়াও দক্ষিণ ২৪ পরগনার ৩১টি কেন্দ্রের মধ্যে ১১টি, হাওড়া জেলার ১৬টির মধ্যে ৯টি এবং হুগলির ১৮টির মধ্যে ১০টি আসনেও ভোট হচ্ছে।

 

 

সারাবাংলা/এএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন