বিজ্ঞাপন

চলে গেলেন করোনা আক্রান্ত ফরিদ আহমেদ

April 13, 2021 | 11:17 am

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া সংগীত পরিচালক ফরিদ আহমেদ আর নেই। রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) সকালে শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। হাসপাতাল সূত্রে তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে।

বিজ্ঞাপন

এই সংগীত পরিচালকের বড় মেয়ে দুরদানা ফরিদ জানান, তার বাবার মরদেহ মিরপুরের শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে সমাহিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পরিবার।

করোনা আক্রান্ত ফরিদ আহমেদের শারীরিক অবস্থার ক্রমাগত অবনতি হওয়ায় ১১ এপ্রিল ভোর থেকে কৃত্রিম উপায়ে শ্বাসপ্রশ্বাস দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

জানা গেছে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন ফরিদ আহমেদকে শনিবার রাতে স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

গত মাসের শেষ দিকে টানা কয়েক দিন ভীষণ জ্বর ছিল সুরকার ও সংগীত পরিচালক ফরিদ আহমেদের। খাবারে স্বাদ-গন্ধ কিছুই পাচ্ছিলেন না। তিনবার করোনার পরীক্ষা করানো হয়। প্রথম দুই দফায় নেগেটিভ এলেও তৃতীয়বারে কোভিড-১৯ পজিটিভ ধরা পড়ে।

বিজ্ঞাপন

অসংখ্য কালজয়ী গানের সুরকার ফরিদ আহমেদ। লিটন অধিকারী রিন্টুর লেখা ও কুমার বিশ্বজিতের গাওয়া ‘তুমি ছাড়া আমি যেন মরুভূমি’ গানে সুর করে প্রশংসিত হন ফরিদ আহমেদ। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। হানিফ সংকেতের উপস্থাপনায় ‘ইত্যাদি’ অনুষ্ঠানের টাইটেল সং ‘কেউ কেউ অবিরাম চুপি’, কুমার বিশ্বজিতের কণ্ঠে ‘মনেরই রাগ অনুরাগ’, রুনা লায়লার ‘ফেরারি সাইরেন’ ও রুনা লায়লা ও সাবিনা ইয়াসমীনের কণ্ঠে ‘দলছুট প্রজাপতি’সহ অনেক জনপ্রিয় গানের সুরকার তিনি।

সংগীতে অবদানের জন্য ২০১৭ সালে সংগীত পরিচালক হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান তিনি। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গল্প অবলম্বনে নির্মিত ‘তুমি রবে নীরবে’ সিনেমায় সংগীত পরিচালনা করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসবি/এএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন