বিজ্ঞাপন

কোভিডের কী সাধ্য পয়লা বৈশাখের প্রাণশক্তিকে চাপা দেয়!—জয়া

April 14, 2021 | 5:29 pm

আহমেদ জামান শিমুল

বাংলা নববর্ষের প্রথম সমস্ত বাঙ্গালী খুবই আড়ম্বরভাবে পালন করে। পান্তা-ইলিশ থেকে শুরু শাড়ি কিংবা পাঞ্জাবিতে থাকে বাঙ্গালীয়ানার ছাপ। ‘এসো হে বৈশাখ’-এর মধ্য দিয়ে সূর্য উঠার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় বাঙ্গালীর প্রাণের উৎসব— নববর্ষ বরণ।

বিজ্ঞাপন

সরকারিভাবে সাধারণ ছুটি থাকায় প্রতিটা মানুষ প্রিয়জনকে নিয়ে ঘুরতে বেড়োন। লাল-সাদা পোশাক ভরে যায় চারপাশ। হাজার বছর ধরে চলে আসা বাঙ্গালীর এ আচার অনুষ্ঠানে পড়েছে ছেদ। কারণ করোনাভাইরাস।

১৪২৭ এ সবাই মনকে সান্ত্বনা দিয়েছিল— একটা বছরই তো! একটু ঘরে থাকি। ঘরেই না হয় সব আয়োজন করি। আলাদা উৎসব না হয় আগামী বছর করবো। তখন পৃথিবী হবে করোনা মুক্ত।

বিজ্ঞাপন

কিন্তু প্রকৃতির খেলা বোঝা বড় দায়। ১৪২৮ ও সবাইকে ঘরে বসে পালন করতে হচ্ছে। আর এ বিষয়টিই এক ভিডিও বার্তায় স্মরণ করিয়ে দিলেন দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান।

তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজে ভিডিও বার্তায় তিনি বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা জানান। তিনি বলেন, ‘গত নববর্ষে আমাদের প্রত্যাশা ছিল এ নববর্ষে আনন্দ হবে। কিন্তু দুঃসময় তবু চলছে। নববর্ষে আবার আমাদের বলতে এসেছে, আমরা আবার একসঙ্গে দুঃসময় পার করবো। আর দুঃসময়টা পার হতে পারি বলে, আমরা মানুষ। শুভ নববর্ষ।’

বিজ্ঞাপন

ভিডিওটির ক্যাপশনে তিনি লিখেন, ‘কোভিডের দুঃসময় আমরা পার হইনি। চারদিকে বিষণ্নতা আর মৃত্যু। কিন্তু দুঃসময়ই যে মানুষের শেষ কথা নয়, সে কথা জানাতেই তো বাংলা নববর্ষের আগমন।

করোনার বিস্তারে গত বছরের নববর্ষে আমরা সংযত থেকেছি। প্রত্যাশা করেছি, পরের নববর্ষে দুর্যোগের গাঢ় মেঘ মাথার ওপর থেকে সরে যাবে। এবারে কোভিড আরও জোরেসোরে ফিরে এসেছে। কিন্তু কোভিডের কী সাধ্য পয়লা বৈশাখের প্রাণশক্তিকে চাপা দেয়! মানুষকে পরাস্ত করা কি এতই সহজ! কত যুদ্ধ, মন্বন্তর, মারি পেছনে ফেলেই না এত দূর এগিয়ে এসেছে মানুষ।

বিজ্ঞাপন

মানুষ মানে এগিয়ে যাওয়া। ঘোর অন্ধকার আসে, তাকে পেছনে ফেলে এগিয়ে চলো, সবাই হাত ধরে—পয়লা বৈশাখ ঠিক এই কথাটিই সব সময় বলে এসেছে।

আমরা সতর্ক আর নিরাপদ থাকব, নিজেদের সুস্থ রাখার জন্য সবকিছু করব, সবার জন্য দু হাত বাড়িয়ে রাখব, মনকে ভরে রাখব আলোয়। নববর্ষের কচি রোদ আমাদের সবার মুখের ওপরে।’

বিজ্ঞাপন

একইসঙ্গে তিনি অগমেন্টেড রিয়েলিটির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন। যেটি হলো ভিডিওর একটি বিশেষ ফরমেট, যেখানে নিজের ইচ্ছে মতো গ্রাফিক্স, এনিমেশন বা ডিজাইন সেট করা যায়। বর্ষবরণে তাই মোবাইল ফোনে যে কেউ ইচ্ছেমতো সাজতে পারেন, ঘুরতে পারেন এ বিশেষ ব্যবস্থায়।

বাংলাদেশের নববর্ষ উপলক্ষ্যে ফেসবুক নতুন একটি অগমেন্টেড রিয়েলিটির তৈরি করেছে। তিনি তার পোস্টে নতুন অগমেন্টেড রিয়েলিটি ইফেক্টটির লিংক শেয়ার করেন।

সারাবাংলা/এজেডএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন