বিজ্ঞাপন

আব্দুল মতিন খসরুর মৃত্যুতে স্পিকারের শোক

April 15, 2021 | 12:12 am

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, সাবেক আইনমন্ত্রী এবং সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি আবদুল মতিন খসরুর মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি।

বিজ্ঞাপন

স্পিকার মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবার ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

বুধবার (১৪ এপ্রিল) বিকেল পাঁচটার দিকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি। মতিনের পারিবারিক সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

বিজ্ঞাপন

করোনা আক্রান্ত হয়ে গত ১৬ মার্চ থেকে সিএমএইচে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইইসিইউতে) চিকিৎসাধীন ছিলেন আব্দুল মতিন খসরু। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) তার অবস্থার অবনতি হলে ভেন্টিলেটারে নেওয়া হয়।

ওইদিন তার সহধর্মিণী সেলিনা সোবাহান খসরু গণমাধ্যমকে জানান, করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর তাকে সিএমএইচে ভর্তি করা হয়। পরে ফুসফুসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় তাকে আইসিইউতে নেওয়া হয়েছিল। সেখান থেকে ভেন্টিলেটারে নেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

আব্দুল মতিন খসরু ১৯৭৮ সালে কুমিল্লা জজকোর্টে যোগদান করেন এবং ১৯৮২ সাল থেকে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে নিয়মিত প্র্যাকটিস শুরু করেন। তিনি ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন এবং কুমিল্লা জেলার অবিভক্ত বুড়িচং থানার মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ছিলেন। বাংলাদেশ সুপ্রিমকোর্ট, আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগে তার করা অনেক গুরুত্বপূর্ণ মামলা ডিএলআরসহ (DLR) বিভিন্ন ‘ল’ জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।

আইনপেশার পাশাপাশি মতিন খসরু জাতীয় রাজনীতির সঙ্গেও জড়িত। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য। এর আগে তিনি দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির আইনবিষয়ক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, যুবলীগ, আওয়ামী লীগের থানা ও জেলার বিভিন্ন পদে রাজনৈতিক দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পাঁচবার এমপি নির্বাচিত হন। ১৯৯৬-২০০১ সাল পর্যন্ত জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি আইনমন্ত্রী থাকাকালে ১৯৯৬ সালে সংবিধান ও মানবতাবিরোধী কালো আইন ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিল করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মম হত্যাকাণ্ডের বিচারের ব্যবস্থা করেন।

বিজ্ঞাপন

তিনি ১০ম জাতীয় সংসদের অনুমিত হিসাব সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্বসহ আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছিলেন। তিনি বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের প্রতিবন্ধীবিষয়ক সংসদীয় মোর্চার (CAUCAS) আহ্বায়ক। এছাড়াও তিনি নিউইয়র্কভিত্তিক পার্লামেন্টারি সংগঠন Parliamentary Global Action (PGA) এর অন্যতম সদস্য হিসেবে আমেরিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক সেমিনারে যোগ দিয়েছেন। সর্বশেষ গত ১০ ও ১১ মার্চ বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে সভাপতি নির্বাচিত হন এবং ১২ এপ্রিল সমিতির সভাপতি হিসেবে অসুস্থ অবস্থায় দায়িত্বভার গ্রহণ করেন।

সারাবাংলা/এএইচএইচ/এসএসএ

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন