বিজ্ঞাপন

কোয়ারেনটাইন শেষেও ছাড়া পাবেন না ভারত ফেরত যাত্রীরা

May 16, 2021 | 9:05 am

লোকাল করেসপন্ডেন্ট

বেনাপোল (যশোর): প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেনটাইনে থাকা ভারত ফেরত যাত্রীদের করোনা পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ফলে কোয়ারেনটাইনের ১৪ দিন পর নয় ১৫তম দিনে নেওয়া নমুনা পরীক্ষার ফলাফল আসার পর বাড়ি ফিরতে পারবেন তারা।

বিজ্ঞাপন

এ নিয়ে ক্ষোভ বিরাজ করছে কোয়ারেনটাইনে থাকা যাত্রীদের মধ্যে। অবশ্য প্রশাসন বলছে, তারা সরকারি নির্দেশনা মানার জন্য সকলকে বোঝানোর চেষ্টা করছেন।

যশোরের সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন বলেন, ঈদের ছুটি ঘোষণা করার পর স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে নতুন নির্দেশনা আসে। নির্দেশনা অনুযায়ী কোয়ারেনটাইনে শেষে সকলের করোনা পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ফলে কোয়ারেনটাইনের ১৫তম দিনে নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষায় পাঠানো হবে। ফলাফল আসার পর নেগেটিভ হলে ছেড়ে দেওয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, পিসিআর টেস্ট রিপোর্ট যাতে দ্রুত পাওয়া যায় সেজন্য সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে। সকলকে এ নির্দেশনা মানতে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

প্রসঙ্গত, ভারতে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়া গত ২৬ এপ্রিল থেকে দেশটির সঙ্গে বাংলাদেশের সকল সীমান্ত বন্ধ করে দেয় সরকার। তবে, ওইদিন থেকে দূতাবাসের বিশেষ অনুমতি নিয়ে দেশে ফেরার সুযোগও দেওয়া হয়। ওইদিন থেকে যারা দেশে ফিরেছেন এবং যাদের করোনা নেগেটিভ সনদ আছে তাদের নিজ খরচে বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেনটাইনে থাকতে হচ্ছে। আর যারা করোনা পজিটিভ তাদের হাসপাতালে ভর্তি রাখা হচ্ছে।

এভাবে গত ২৬ এপ্রিল থেকে শুক্রবার (১৪ মে) পর্যন্ত দেশে ফিরেছেন দুই হাজার ৮০২ জন। যাদের যশোরসহ পার্শ্ববর্তী পাঁচ জেলায় প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেনটাইনে রাখা হয়েছে। এর মধ্যে ১৪ দিনের কোয়ারেনটাইন শেষ করে ফিরে গেছেন একহাজার ১৭০ জন এবং বর্তমানে কোয়ারেনটাইনে আছেন একহাজার ৬৩২ জন। গত শুক্রবার পর্যন্ত ১৪ দিনের কোয়ারেনটাইন শেষে কোনোরকম পরীক্ষা ছাড়াই ফিরে যেতে পারলেও এখন আর সেটা সম্ভব হবে না। কারণ সরকারি নির্দেশনা মতে, কোয়ারেনটাইনে থাকাদের ১৫তম দিনে নমুনা নেওয়া হবে এবং রিপোর্ট আসার পর তাদের ছাড়া হবে। শনিবার এ সংক্রান্ত নির্দেশনা প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেনটাইন সেন্টারগুলোতে টাঙিয়ে দেওয়া হয়েছে।

যশোর ওরিয়ন হোটেলের ফ্রন্ট ডেস্ক ম্যানেজার মেহেদি হাসান জানান, তাদের হোটেলে ১৩ জন কোয়ারেনটাইনে আছেন। তাদের মধ্যে পাঁজজন নারী ও ৮ জন পুরুষ। গতকাল শনিবার (১৫ মে) দুপুরের দিকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি নোটিশ দিয়ে যায়। সেটি হোটেলের লবিতে সাঁটিয়ে দেওয়া হয়েছে। নোটিশটি কোয়ারেনটাইনে থাকা নারী ও পুরুষরা দেখেছেন। এরপর থেকে তারা ক্ষোভে ফুঁসছেন।

বিজ্ঞাপন

কোয়ারেনটাইনে থাকা কয়েকজন জানান, করোনার নেগেটিভ সনদ থাকা সত্ত্বেও তাদের সঙ্গে হয়রানিমূলক আচরণ করা হচ্ছে। এটা কাম্য নয়। ভারত থেকে ফেরার পর হাত শূন্য। এ অবস্থায় নিজ খরচে বন্দী অবস্থায় থেকে মানসিক অবসাদে ভুগছেন তারা।

এসব বিষয়ে যশোরের জেলা প্রশাসক মো. তমিজুল ইসলাম খান বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনা পাওয়ার পর শুক্রবার (১৪ মে) রাতে জরুরি বৈঠক করা হয়। বৈঠকের সিদ্ধান্ত মতে, শনিবার নতুন নির্দেশনা কোয়ারেনটাইন সেন্টারে টাঙিয়ে দেওয়া হয়েছে। এর ফলে অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এমনকি গালিগালাজও করছেন। কারণ তাদের অনেকে পূর্বের সিদ্ধান্তের আলোকে বাড়ি ফেরার টিকিটও কিনেছেন। আমরা তাদের ম্যানেজ করার চেষ্টা করছি। তাদের ধৈর্য্য ধরতে অনুরোধ করছি। কারণ সরকারি নির্দেশনা তো মানতেই হবে।

সারাবাংলা/এনএস

Tags: , , ,

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন