বিজ্ঞাপন

বাজেটে দেশীয় কৃষি উৎপাদনকে উৎসাহিত করায় সন্তুষ্ট কৃষিমন্ত্রী

June 4, 2021 | 5:11 pm

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে কৃষি খাতের বরাদ্দ নিয়ে সন্তুষ্টি জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। এই খাতে দেশীয় উৎপাদনকে উৎসাহিত করতে কর সুবিধা প্রদান কৃষি ও খাদ্য নিরাপত্তায় সরকারের অগ্রাধিকারমূলক অবস্থানের প্রতিফলন বলে মন্তব্য তার। ক্রমান্বয়ে কৃষি খাত দেশের বড় একটি রফতানি খাতে পরিণত হবে বলেও আশাবাদ জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার (৪ জুন) বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলনে যুক্ত হয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে কৃষিমন্ত্রী এ কথা বলেন। করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে গত বছরের মতো এ বছরও ভার্চুয়াল মাধ্যমে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

মাংস আমদানিতে শুল্ক আরোপ বিষয়ক এক প্রশ্নের জবাবে কৃষিমন্ত্রী বলেন, দেশীয় উৎপাদনকে উৎসাহিত করছে সরকার। কৃষি উৎপাদনে যুক্ত দেশীয় উদ্যোক্তাদেরও উৎসাহিত করছে। এ কারণে কেবল মাংস আমদানিতেই কর বাড়ানো হয়নি, কৃষিকাজে ব্যবহৃত যেকোনো কাঁচামাল আমদানিতে কর কমানো হয়েছে। অর্থাৎ যারা এখানে কৃষি উৎপাদন করবেন, তাদের প্রয়োজনীয় পণ্যে কর কমানো হয়েছে, যারা কারা সরাসরি আমদানি করতে চায়, তাদের জন্য বাড়ানো হয়েছে। আমরা এমন একটি পর্যায়ে পৌঁছাতে চাই যে ভবিষ্যতে বিদেশ থেকে আর মাংস আমদানি করতে হবে না।

বিজ্ঞাপন

মন্ত্রী বলেন, সরকার কৃষি উৎপাদনে সব ধরনের সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে। কৃষিতে প্রযুক্তিগত দিক থেকে এখন আমরা অনেক এগিয়ে গিয়েছি। এখন আমাদের সক্ষমতার পুরোটা ব্যবহার করতে পারলে স্থানীয় বাজারের চাহিদা আমরাই পূরণ করতে পারব। আমরা সবজি, ফলমূলসহ সবকিছুর উৎপাদন বাড়িয়েছি। এখন আমাদের লক্ষ্য, টাটকা ফলমূল ও সবজিসহ কৃষিপণ্যের পাশাপাশি ‍কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াজাত করে রফতানি করা। আমরা আমদানি বন্ধ করব, ধীরে ধীরে বিদেশে রফতানি করব। শুধু তৈরি পোশাক না, কৃষি হবে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের বড় একটি খাত।

বাজেটে কৃষি খাতের বরাদ্দ দিয়ে সন্তুষ্টি জানিয়ে কৃষিমন্ত্রী বলেন, কৃষির বাজেট এ বছরও কমেনি। কৃষি ঋণে সুদ কমানো হয়েছে। খরচ কমানোর জন্যে কৃষি যান্ত্রিকীরণের দিকে যাচ্ছি। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, কৃষির জন্য যখন যা প্রয়োজন তা পাওয়া যাবে। আমরা সেটা পেয়ে আসছি। ভবিষ্যতেও পাব। কৃষিতে বরাদ্দ নিয়ে শঙ্কা নেই।

বিজ্ঞাপন

মন্ত্রী আরও বলেন, কৃষিক্ষেত্রে আমরা নানা প্রণোদনা দিচ্ছি। কৃষিতে যা প্রয়োজন (বরাদ্দ), তাই পাওয়া যাচ্ছে।  এ বছর আমরা বোরোর উৎপাদন বাড়াতে জন্য ১ লাখ হেক্টর বাড়তি জমিতে হাইব্রিড ধান উৎপাদনের লক্ষ্য ছিল। কিন্তু ৩ লাখ হেক্টর বেশি জমিতে হাইব্রিড ধান আবাদ করা গেছে। এ জন্য বোরোর উৎপাদন বেড়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, প্রধানমন্ত্রীর অর্থ উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. ফজলে কবির, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম, অর্থ সচিব আব্দুর রউফ তালুকদারসহ অন্যরা যুক্ত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/ইএইচটি/টিআর

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন