বিজ্ঞাপন

আসলাম চৌধুরীর জামিন স্থগিতই থাকছে

June 20, 2021 | 12:26 pm

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন স্থগিতই রেখেছে আপিল বিভাগ। এর ফলে, আসলাম চৌধুরীকে কারাগারেই থাকতে হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

রোববার (২০ জুন) রাজধানীর কোতোয়ালি ও শাহবাগ থানার দুই নাশকতার দুই মামলায় হাইকোর্টের দেওয়া জামিনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের শুনানি শেষে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন ছয় বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন। আসলাম চৌধুরীর পক্ষে লড়েছেন আইনজীবী রুহুল কুদ্দুস কাজল।

বিজ্ঞাপন

এর আগে, ৩০ মে এই দুই মামলায় বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মহি উদ্দিন শামীমের হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ আসলাম চৌধুরীকে জামিন দেন।

পরে, জামিনাদেশ স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ। ৬ জুন আসলাম চৌধুরীকে হাইকোর্টে দেওয়া জামিন ২০ জুন পর্যন্ত স্থগিত করে রাষ্ট্রপক্ষকে লিভ টু আপিল করতে বলা হয়েছিল। সেই আবেদনের শুনানি শেষে জামিন স্থগিতই রাখার সিদ্ধান্ত জানিয়েছে আপিল বিভাগ।

বিজ্ঞাপন

২০১৬ সালের ১৫ মে ঢাকার খিলক্ষেত এলাকা থেকে গ্রেফতার হন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা বিএনপির তৎকালীন আহ্বায়ক আসলাম চৌধুরী। পরদিন ১৬ মে ফৌজদারি কার্যবিধির (সন্দেহজনক) ৫৪ ধারায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়।

তার বিরুদ্ধে ইসরায়েলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদ এজেন্টের সঙ্গে হাত মিলিয়ে বাংলাদেশের সরকার উৎখাত ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনা হয়। রাষ্ট্রদ্রোহের দুই মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়। পরে নাশকতা, চেক প্রতারণাসহ বিভিন্ন মামলায় আসামি হন আসলাম। অন্যান্য মামলায় তিনি আগেই জামিন পেয়েছেন বলে জানান তার আইনজীবীরা।

বিজ্ঞাপন

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, নাশকতার অভিযোগে রাজধানী ঢাকার কোতোয়ালি থানায় ২০১৩ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি এবং একইবছরের ২২ এপ্রিল অপর মামলাটি শাহবাগ থানায় করা হয়। এই দুই মামলায় কারাবন্দি আসলাম চৌধুরীকে আসামি হিসেবে চলতি বছরের ১১ জানুয়ারি গ্রেফতার দেখানো হয়।

এছাড়াও, ২০১৬ সালের ২৬ মে নগরীর গুলশান থানায় আসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে মামলা করে পুলিশ। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি পাওয়ার পর দণ্ডবিধির ১২০/বি (রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র), ১২১/এ (রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার ষড়যন্ত্র) এবং ১২৪/এ (রাষ্ট্রদ্রোহ) ধারায় মামলাটি করা হয়।

বিজ্ঞাপন

দণ্ডবিধির ১২০ (বি), ১২১ (৩) ও ১২৪ (এ) ধারায় রাষ্ট্রদ্রোহ আইনে মামলায় আসলামের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের সরকার উৎখাত ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনা হয়েছে।

সারাবাংলা/কেআইএফ/একেএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন