বিজ্ঞাপন

অলিগলিতে কোরবানির বর্জ্য, উত্তরে ‘উধাও’ সিটি করপোরেশনের কর্মীরা

July 21, 2021 | 6:27 pm

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের অলিগলিতে কোরবানির বর্জ্য পড়ে থাকতে দেখা গেছে। এমনকি বাড়ির সামনেও কোরবানি দেওয়া পশুর বর্জ্য সিটি করপোরেশন থেকে দেওয়া বস্তায় পড়ে থাকতে দেখা গেছে। এলাকাবাসী বলছেন, উত্তরে সিটি করপোরেশনের কর্মীরা ‘উধাও’ হয়ে গেছে। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত করপোরেশনের কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ময়লা অপসারণ করতেও দেখা যায়নি।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (২১ জুলাই) ঈদুল আজহার দিনে রাজধানীর ভাটারা, ছোলমাঈদ ও সাঈদনগর এলাকায় এসব দৃশ্য দেখা গিয়েছে।

রাজধানীর ভাটারা এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, কোরবানি দেওয়া পশুর বর্জ্য অধিকাংশ বাড়ির সামনে সিটি করেপারেশন থেকে দেওয়া বস্তায় পড়ে আছে। এমনকি রাস্তার অলিগলিতে কোরবানির বর্জ্য পড়ে থাকতে দেখা গেছে। তবে এই এলাকাগুলোতে সিটি করপোরেশনের কোনো কর্মকর্তাদের ময়লা অপসারণ করতে দেখা যায়নি।

বিজ্ঞাপন

একইসঙ্গে রাজধানীর ছোলমাঈদ এলাকাতেও দেখা গেছে একই চিত্র। ছোলমাঈদ এলাকার বিভিন্ন অলিগলি এবং মোড়ে বস্তা ভরে রাখা হয়েছে কোরবানির পশুর বর্জ্য। এভাবেই রাজধানীর ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ছোলমাঈদ এলাকায় কোরবানির পশুর বর্জ্য পড়ে থাকতে দেখা যায়।

ছোলমাঈদ এলাকার স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, যারা কোরবানি দিয়েছেন তারা সিটি করপোরেশন থেকে দেওয়া কোরবানির পশুর বর্জ্য রাখার ব্যাগে পশুর বর্জ্য ভরে রেখেছেন। তবে সকাল থেকে এই এলাকাতে সিটি করপোরেশনের বর্জ্য অপসারণের কর্মীদের বর্জ্য সরাতে দেখেননি তারা।

বিজ্ঞাপন

অলিগলিতে কোরবানির বর্জ্য, উত্তরে ‘উধাও’ সিটি করপোরেশনের কর্মীরা

অপরদিকে, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের সাঈদনগর এলাকার অলিগলির মুখেও বর্জ্য পড়ে থাকতে দেখা গেছে। অনেক বাড়ির সামনেই বর্জ্য রাখা হয়েছে। যারা কোরবানি দিয়েছেন তাদের বক্তব্য, ‘সিটি করপোরেশন থেকে দেওয়া ময়লার বর্জ্যর ব্যাগে তারা বর্জ্য ঢুকিয়ে সেগুলোর মুখ ভালো করে বেঁধে রেখে দিয়েছেন। এখন সিটি করপোরেশন থেকে লোক এসে বর্জ্য না নিয়ে গেলে তাদের কি করার আছে।’

বিজ্ঞাপন

এর আগে, গতকাল ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছিলেন, কেউ যদি নিজের বাড়ির সামনে কোরবানির পশুর বর্জ্য ফেলে রাখেন তাহলে ডিএনসিসির ময়লার গাড়ি থেকেও তার বাড়ির সামনে অধিক পরিমাণ বর্জ্য ফেলে আসা হবে। আসন্ন ঈদুল আজহায় স্থানীয় কাউন্সিলরসহ সবার আন্তরিক সহযোগিতায় ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণ করা হবে।

উল্লেখ্য, বিশেষ পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রমের আওতায় এবার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে ১১ হাজার ৫০৮ জন কর্মী কোরবানির বর্জ্য অপসারণ কাজে নিয়োজিত রয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসজে/এমও

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন