বিজ্ঞাপন

‘মুক্ত বাতাসের ঘ্রাণ’ নিতে হাতিরঝিলে দর্শনার্থীদের ভিড়

July 22, 2021 | 12:21 am

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: করোনাভাইরাসের কারণে গত বছরও মতো এবছরও ঈদের সময় রাজধানীর সব বিনোদন কেন্দ্রগুলো বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে ঈদ সামনে রেখে সরকার কিছুদিনের জন্য কঠোর বিধিনিষেধ শিথিল করেছে। সে সুযোগে রাজধানীর বিনোদন কেন্দ্রগুলো বন্ধ থাকলেও ভ্রমণ পিপাসুদের বেড়ানো বন্ধ নেই।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (২১ জুলাই) পবিত্র ঈদুল আজহার দিন রাজধানীর হাতিলঝিল গিয়ে দেখা গেল দর্শনার্থীদের ভিড়। যে যেভাবে পারছেন ঘুরছেন প্রিয়জনকে সঙ্গে নিয়ে। তারা বলছেন, ‘করোনাকালে ঘরবন্দি থাকতে থাকতে হাঁপিয়ে উঠেছেন। তাই মুক্ত বাতাসের ঘ্রাণ নিতে হাতিরঝিলে ঘুরতে এসেছেন।’

হাতিরঝিলে ঘুরতে এসেছেন রাজধানীর মোহাম্মদপুর রাসেল আহমেদ। তিনি সারাবাংলাকে বলেন, ‘ঈদের দিন প্রিয়জনের সঙ্গে একটু ঘুরতে আসা। আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনেই আমরা এসেছি। করোনার কারণে সবকিছু বন্ধ। তাই মুক্ত বাতাসে একটু নিশ্বাস নিতে এসেছি।’

বিজ্ঞাপন

আফতাবনগরের বাসিন্দা হুমায়রা ইসলাম। তিনি বলেন, ‘করোনার সময় আমরা এক ধরনের বন্দি জীবনযাপন করছি। আগামীকাল পার হলেই আবার কঠোর বিষিনিষেধ। স্বামী-সন্তান নিয়ে তাই একটু বাইরে আসা। হাতিরঝিলে এসেছি তবে লোক সমাগম যেখানে কম আমরা সেখানেই আছি। স্বাস্থ্যবিধি মেনে মাস্ক পরেই আমরা আসছি। স্রষ্টা এই মহামারি থেকে আমাদের সবাইকে রক্ষা করুন, এটাই আমাদের চাওয়া।’

‘মুক্ত বাতাসের ঘ্রাণ’ নিতে হাতিরঝিলে দর্শনার্থীদের ভিড়

বিজ্ঞাপন

পরিবার নিয়ে ঘুরতে এসেছেন আনাফ রহমান। কাছে গিয়ে ঈদের শুভেচ্ছা জানাতেই বললেন, ‘ভাইয়া আমরা কিন্তু ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়েই এসেছি। ফাঁকা জায়গাতে বসে একটু মুক্ত বাতাসের ঘ্রাণ নিচ্ছি। কি করব বলেন, ঘরে থাকতে থাকতে একদন অন্যরকম হয়ে যাচ্ছি আমরা।’

গত ৬ দিন ছিলো লকডাউন শিথিল। তাইতো এই সুযোগে অনেকেই গ্রামের বাড়িতে গিয়েছেন প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে। তবে যারা রাজধানীতে আছেন কিংবা রাজধানীর স্থায়ী বাসিন্দা তারা বিকেলে হাতিরঝিলে এসেছিলেন একটু ঘুরতে। প্রিয়জনকে সময় দিতে। মনের আনন্দে কিছুটা সময় প্রিয়জনের সঙ্গে কাটাতে।

বিজ্ঞাপন

ফলে ঈদের দিন কোনো বিষিনিষেধ না থাকায় বিকেল যতই বাড়তে থাকে হাতিরঝিলে ততোই ভ্রমণপিপাসুদের ভিড় বাড়তে থাকে। কিন্তু হাতিরঝিলে যারাই এসেছিলেন তাদের অধিকাংশেরই মুখে ছিলো না কোনো মাস্ক, এমনকি মানেননি শারীরিক দূরত্বের বিষয়টিও।

সারাবাংলা/এসজে/এমও

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন