বিজ্ঞাপন

ইসরায়েলের বিপক্ষে খেললেন না আরেক জুডোকো

July 26, 2021 | 3:45 pm

স্পোর্টস ডেস্ক

টোকিও অলিম্পিক ২০২০ এর ৭৩ কেজি ওজন শ্রেণীর প্রথম রাউন্ড থেকেই নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন আলজেরিয়ান জুডোকো ফেথি নুরিন। কেননা প্রথম রাউন্ড জিতলেই দ্বিতীয় রাউন্ডে তার প্রতিপক্ষ হতেন ইসরায়েলের তোহার বুটবল। প্রথম রাউন্ডে নুরিনের প্রতিপক্ষ সুদানের মোহাম্মাদ আবদালরসুল ছিলেন। এবার এবার দ্বিতীয় রাউন্ডে ইসরায়েলের বুটবলের বিপক্ষে খেলতে মাঠেই এলেন না সুদানের আবদালরসুল।

বিজ্ঞাপন

ইসরায়েলের জুডোকোর বিপক্ষে প্রতিযোগিতা করতে অস্বীকৃতি জানানো নুরিন নিজের সিদ্ধান্তর ব্যাপারে বলেছিলেন, 'আমরা অলিম্পিকে খেলতে কঠোর পরিশ্রম করেছি। তবে ফিলিস্তিন ইস্যুটি আমার কাছে সবকিছুর চেয়ে বড়। ওখানে যা ঘটছে এরপর ইসরায়েলের একজন অ্যাথলেটের বিপক্ষে খেলা আমার পক্ষে অসম্ভব।'

আরও পড়ুন: ইসরায়েলের বিপক্ষে খেলতে অস্বীকার করায় নিষিদ্ধ আলজেরিয়ান জুডোকো

বিজ্ঞাপন

এবার দ্বিতীয় রাউন্ডে এসেও লড়তে হলো না ইসরায়েলের বুটবলকে। কারণ তাঁর এবারের প্রতিপক্ষ সুদানের মোহাম্মদ আবদালরাসুল ভেন্যুতেই আসেননি!

তবে কেন আসেননি আবদালরাসুল, তা আন্তর্জাতিক জুডো ফেডারেশন জানাতে পারেনি বলে লিখেছে ইংলিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ান। এ নিয়ে কোনো মন্তব্যও করেনি কর্তৃপক্ষ। সুদানের অলিম্পিক কমিটিও এখন পর্যন্ত এ নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। তবে ধারণা করা হচ্ছে, আবদালরাসুলের ম্যাচ না খেলার কারণও হয়তো ফেথি নুরিনের মতোই।

বিজ্ঞাপন

এব্যাপারে গার্ডিয়ান লিখেছে, অলিম্পিক কর্মকর্তারা জানাচ্ছেন যে আবদালরাসুল দ্বিতীয় রাউন্ডে বুটবলের বিপক্ষে ম্যাচে খেলার আগে ওজন মাপানোর সময় ঠিকই ছিলেন, কিন্তু ম্যাচে আসেননি।

আবদালরাসুলও নুরিনের মতো কিছু ভেবে খেলেননি কি না, তা এখনো নিশ্চিত নয়। তবে খেললে আবদালরাসুলের হারই হয়তো ছিল স্বাভাবিক। জুডোকার ৭৩ কেজি শ্রেণির বিশ্ব র‍্যাংকিং ইসরায়েলের বুটবল যেখানে সপ্তম, আবদালরাসুলের র‍্যাংকিং সেখানে ৪৬৯।

বিজ্ঞাপন

২০১৯ সালে টোকিওতে ওয়ার্ল্ড জুডো চ্যাম্পিয়নশিপেও ইসরায়েলি প্রতিপক্ষের বিপক্ষে খেলতে অস্বীকৃতি জানান নুরিন। তিনি ছাড়াও ইরানের কয়েকজন জুডোকা ইসরায়েলের বিপক্ষে খেলতে রাজি হননি। ২০১৬ সালে এমন কাজ করেছিলেন মিশরের জুডোকা এল সাহাবি।

কেবল নুরিন একাই নয় এর আগে ইসরায়েলের অ্যাথলেটদের বিপক্ষে খেলতে অস্বীকৃতি জানানোয় ইরানকে চার বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছে আন্তর্জাতিক জুডো ফেডারেশন। কারণ, এক ইরানি জুডোকা বলেছিলেন, পরের রাউন্ডে যেন ইসরায়েলি জুডোকার সঙ্গে খেলতে না হয়, সেটা নিশ্চিত করতে ম্যাচ হারতে বাধ্য হয়েছিলেন তিনি। ২০২৩ সাল পর্যন্ত জুডোতে নিষিদ্ধ ইরান দল। ইরান ছাড়া মিসরও ইসরায়েলের খেলোয়াড়দের সঙ্গে খেলতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে আগে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন