বিজ্ঞাপন

অনুমোদন ছাড়া করোনা চিকিৎসা, অভিযানে নামছে স্বাস্থ্য অধিদফতর

July 31, 2021 | 2:14 pm

সৈকত ভৌমিক, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: অনুমোদন ছাড়াই নভেল করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছে রাজধানীর অনেক হাসপাতাল। সরকারি তথ্যে প্রায় ৯৪ শতাংশ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে পাওয়া যায় না কোনো মৃত্যুর তথ্য। এমন অবস্থায় অভিযানে নামছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

বিজ্ঞাপন

শনিবার (৩১ জুলাই) সকালে স্বাস্থ্য অধিদফতরের একাধিক সূত্র সারাবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা দেওয়ার পাশাপাশি অতিরিক্ত বিল নেওয়া, মানহীন সেবাসহ রোগীদের পক্ষ থেকে নানান সময় অভিযোগ করা হয়েছে বিভিন্ন হাসপাতালের বিরুদ্ধে। এসব অভিযোগ তদারকি ও নজরদারি করার জন্য একটি কমিটি গঠন করে স্বাস্থ্য অধিদফতর। ৪ মে গঠন করা ওই কমিটিতে স্বাস্থ্য অধিদফতরের কর্মকর্তা, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ও জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তাসহ সাতজন সদস্য রয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

বিভিন্ন হাসপাতালে অনিয়মের বিষয়ে একাধিক রিপোর্ট প্রকাশিত হয় সারাবাংলায়।

আরও পড়ুন

বিজ্ঞাপন

এর আগে রাজধানীর উত্তরায় অবস্থিত ক্রিসেন্ট হাসপাতাল ও রেডিক্যাল হাসপাতাল পরিদর্শনে গিয়ে নানা রকমের অসঙ্গতি পেয়েছে বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে কোভিড-১৯ চিকিৎসাসেবার মান ও ব্যয় সংক্রান্ত বিষয় তদারকি ও নজরদারির জন্য গঠিত স্বাস্থ্য অধিদফতরের কমিটি। অনুমতি না নিয়েই চিকিৎসা দেওয়া, বিল নিয়ে অসঙ্গতি, অতিরিক্ত সার্ভিস চার্জ নেওয়া, ট্রায়াজ ব্যবস্থা নিশ্চিত না করেই হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া থেকে শুরু করে নমুনা পরীক্ষা নিয়েও নানা অসঙ্গতি পেয়েছে কমিটির সদস্যরা। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে রেডিক্যাল হাসপাতালে কোভিড-১৯ চিকিৎসা বন্ধের নির্দেশনাও দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। একইসঙ্গে ক্রিসেন্ট হাসপাতালকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিক) ডা. মো. ফরিদ হোসেন মিঞার বলেন, সরকার জনগণকে স্বাস্থ্যসেবা দিতে বদ্ধপরিকর। এ জন্য কোনো ধরনের অনিয়মকে প্রশ্রয় দেওয়া হবে না। সরকারিভাবে সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে চিকিৎসা দিয়ে যাওয়ার জন্য। একইভাবে বেসরকারি হাসপাতালেও গুরুত্ব দিয়ে চিকিৎসাব্যবস্থা নিশ্চিত করা হচ্ছে। তারপরেও নানা রকমের অভিযোগ আসে। সেগুলো দূর করতে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে যা কোভিড-১৯ চিকিৎসার মান ও ব্যয় সংক্রান্ত নানা বিষয় তদারকি ও নজরদারি করবে। দুইটি হাসপাতাল পরিদর্শন করে তাদের দেওয়া সুপারিশের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তারপরেও যদি হাসপাতালগুলোতে কোনো অনিয়ম পাওয়া যায়, তাহলে কঠোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসবি/এএম

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন