বিজ্ঞাপন

নার্ভাস রোনালদো— সবকিছুই লাগছে অবিশ্বাস্য

September 12, 2021 | 2:21 pm

স্পোর্টস ডেস্ক

ওল্ড ট্রাফোর্ডে এক যুগ পরে লাল জার্সির ৭ নম্বর গায়ে চড়িয়ে রোনালদোর দিতীয় দফায় অভিষেক। দিনটিকে স্মরণীয় করেই রাখলেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। নিউক্যাসল ইউনাইটেডের বিপক্ষে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ৪-১ ব্যবধানের জয়ে রোনালদো রাখলেন দুই গোল করে অবদান। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর প্রত্যাবর্তনটা হলো রাজসিক, রোনালদোর মতো করেই।

বিজ্ঞাপন

ম্যাচের প্রথম গোল করে দলকে এগিয়ে নিলেন। নিউক্যাসল ইউনাইটেড সমতায় ফেরার পর ফের গোল করে দলকে এগিয়ে নেন সিআর-সেভেন। রোনালদোময় দিনই দেখল ওল্ড ট্রাফোর্ড। দ্বিতীয় বারের মতো রোনালদো গোল করে যখন রেড ডেভিলদের এগিয়ে নিলেন রোনালদো তখন ধারাভাষ্যকর পিটার ডুররে চিৎকার করে বলছেন, 'ইটস রোনালদো, টু-ওয়ান টু ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। দ্যা থিয়েটার ইজ লিভিং ইটস ড্রিম।'

বিজ্ঞাপন

এখানেই অবশ্য থামেননি ডুররে। তিনি আরও বলেন, 'মাদেইরা, ম্যানচেস্টার, মদ্রিদ, তুরিন আবার ম্যানচেস্টার। আবারও সেই লাল জার্সি গায়ে তুলেছেন। এ যেন চলাফেরা করা একটি শিল্প। রোনালদো যেন ওয়াইন, বয়সের সঙ্গে সঙ্গে আরও ধারাল হয়ে উঠছেন। রোনালদো একজন জাদুকর।'

রোনালদো মনে মনে হয়তো বলবেন, এর চেয়ে ভালো প্রত্যাবর্তন আর হতে পারত না! ওদিকে ইউনাইটেড ভক্তরাও নিজেদের চিমটি কাটতে পারেন, আসলেই কী! রোনালদো ফিরলেন, গোল করলেন, দলকে জেতালেন!

বিজ্ঞাপন

নার্ভাস রোনালদো— সবকিছুই লাগছে অবিশ্বাস্য

ম্যাচ শেষে বিবিসি স্পোর্টকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে রোনালদো বলেন, 'এটা অবিশ্বাস্য। ম্যাচ শুরু করার সময় আমার খুব নার্ভাস লাগছিল। এটাই স্বাভাবিক। এ ছাড়া আমি আশা করতে পারিনি যে তারা পুরো ম্যাচে আমার নামে গান গাইবে। নার্ভাস না থাকলেও সেটা আমি বুঝতে দিতে পারতাম না। তারা যেভাবে আমাকে বরণ করে নিয়েছে সেটা এক কথায় অসাধারণ।'

বিজ্ঞাপন

ওল্ড ট্রাফোর্ড আজ সেজেছিল রোনালদোর সাজে। পর্তুগিজ যুবরাজের অভিষেক যে নিশ্চিতই ছিল। ২০০৯ সালে ইউনাইটেড ছেড়ে রিয়াল মাদ্রিদে গিয়ে চারটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগসহ সবই জিতেছেন রোনালদো, তবে সর্বজয়ী হিসেবে তৈরি হয়েছিলেন এই ইউনাইটেডেই। রিয়াল, জুভেন্টাসের পাঠ চুকিয়ে ১২ বছর পর আবারও যখন ঘরে ফিরলেন ইউনাইটেড ভক্তদের রোমাঞ্চিত হওয়ারই কথা। স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসনের গ্যালারিতে উপস্থিত হওয়া সেটাই বুঝিয়ে দিচ্ছিল। এই ম্যাচের টিকিটের জন্য হাহাকার পড়ে গিয়েছিল। এত রোমাঞ্চের মধ্যে কী আর অন্যকে ‘নায়ক’ হতে দেন রোনালদো! সব আলো কেড়ে নিলেন নিজে।

নার্ভাস রোনালদো— সবকিছুই লাগছে অবিশ্বাস্য

বিজ্ঞাপন

আগের দিন ওল্ড ট্রাফোর্ডের প্রায় পুরোটা জুড়েই সমর্থকদের গায়ে ছিল রোনালদো নামের জার্সি। আর ম্যাচের পুরোটা সময়ে তার জয়ধ্বনি করেছেন তারা। সবমিলিয়ে অবিশ্বাস্যই লাগছে তার, 'সমর্থকেরা আজ (গতকাল) আমার সঙ্গে যা করেছে, তাদের প্রশংসা করতেই হবে। নিজেকে গর্বিত মনে হয়েছে। আমার জন্য এটা ছিল অবিশ্বাস্য এক মুহূর্ত। আমি খুব নার্ভাস ছিলাম। ভাবছিলাম আমি ভালো খেলতে চাই আর দলকে যে সাহায্য করার সামর্থ্য আমার আছে সেটা দেখাতে চাই।'

রোনালদো ব্যক্তিগত অর্জনের চেয়ে দলীয় সাফল্যকেই এগিয়ে রাখলেন, ‘আমি এখানে ম্যাচ জিততে আর দলকে সাহায্য করতে এসেছি। নিশ্চয়ই আমি গোল করে আনন্দিত। তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে দল। আর দল ভালো খেলেছে।’

সারাবাংলা/এসএস

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন