বিজ্ঞাপন

প্রথম ধাপে বিনা ভোটে নির্বাচিত ৭১ চেয়ারম্যান প্রার্থী

September 19, 2021 | 1:10 pm

গোলাম সামদানী, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দশম ইউপি নির্বাচনের প্রথম ধাপে ৩৭১টি ইউনিয়ন পরিষদের তফসিল ঘোষণা করে ইসি। এরমধ্যে ২১ জুন ২০৪টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। আগামীকাল ২০ সেপ্টেম্বর ১৬০টি ইউপি নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হবে। এই ৩৬৪ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৭১ জনই বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন। বিনা ভোটে নির্বাচিত সবাই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী।

বিজ্ঞাপন

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, অনুষ্ঠিত ২০৪টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ২৮ জন এবং আগামীকাল ২০ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠেয় ১৬০টি ইউপির মধ্যে ৪৩ জন বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন। এই ৭১ জনের মধ্যে আবার ৬৪ জনই দেশের দক্ষিণাঞ্চলের ছয় জেলা থেকে জনপ্রতিনিধি হলেন।

ঘোষিত প্রথম ধাপের তফসিল অনুযায়ী, গত ২১ জুন ৩৭১টি ইউপিতে নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও ওইদিন নির্বাচন হয় ২০৪টিতে। তফসিলের পর সীমান্তবর্তী জেলায় করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় বাকি ১৬৭টি ইউপিতে নির্বাচন স্থগিত ঘোষণা করে ইসি। স্থগিত হওয়া ১৬৭টি ইউপির মধ্যে আগামীকাল ১৬০টি ইউপিতে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

এ ব্যাপারে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার সারাবাংলাকে বলেন, কোথা থেকে কে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কিংবা নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত হয়েছেন, এতে কারো কিছু আসে যায় না। কারণ এই নির্বাচনের কোনো গ্রহণযোগ্যতা নেই। এই নির্বাচন নিয়ে জনগণের কোনো আগ্রহ নেই।

তিনি বলেন, একতরফা নির্বাচনে কে কোথায় থেকে কিভাবে জনপ্রতিনিধি হলো এতে কিছু যায় আসে না। এক কথায় বলবো এই নির্বাচন কমিশন দেশের নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিয়েছে। জনগণের কাছে নির্বাচন শব্দটি হাস্যকর হয়ে গেছে।

বিজ্ঞাপন

ইসি সূত্র জানায়, আগামীকাল অনুষ্ঠিতব্য ১৬০ ইউপি নির্বাচনে বাগেরহাটের ৩৮ জন, চট্টগ্রামের সন্দীপের চারজন ও খুলনা থেকে একজন বিনা ভোটে নির্বাচিত হয়েছে।

এর আগে গত ২১ জুন প্রথম ধাপের প্রথম দফায় অনুষ্ঠিত ২০৪টি ইউপি নির্বাচনে বরিশাল বিভাগের পাঁচ জেলা থেকে ২৬ জন এবং গাজীপুর থেকে দুইজন চেয়ারম্যান বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন।

বিজ্ঞাপন

উল্লেখ্য, বর্তমানে দেশে ৪ হাজার ৫৭১টি ইউনিয়ন পরিষদ রয়েছে। স্বাধীনতার পর থেকে ইতিমধ্যেই নয়বার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে ১৯৭৩ সালে প্রথম ইউপি নির্বাচন এবং সর্বশেষ ২০১৬ সালে নবম ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সর্বশেষ ২০১৬ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। ২০১৬ সালের ২২ মার্চ থেকে ৪ জুন পর্যন্ত ছয়ধাপে চার হাজার ২৭৫টি ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/জিএস/এএম

বিজ্ঞাপন

Tags:

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন