বিজ্ঞাপন

তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি দিতে তাড়াহুড়া নেই: মাহমুদ কুরেশি

September 21, 2021 | 6:43 pm

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

আফগানিস্তানে তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি দিতে কোনো তাড়াহুড়া নেই বলে জানিয়েছেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কোরেশি। তিনি বলেন, তালেবানকে বুঝতে হবে, তারা যদি স্বীকৃতি ও যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠনে সহযোগিতা চায়, তাহলে তাদের আরও সংবেদনশীল এবং আন্তর্জাতিক মতামত ও নিয়মকানুনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে হবে।

বিজ্ঞাপন

জাতিসংঘের ৭৬তম সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে অবস্থান করছেন কোরেশি। মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) নিউইয়র্কে সাংবাদিকদের সঙ্গে তিনি আফগানিস্তান পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেন। তিনি জানান, স্বীকৃতির বিষয়টি বিবেচনা করার আগে আফগানিস্তানে কীভাবে পরিস্থিতি বিকশিত হচ্ছে তা পর্যবেক্ষণ করছে দেশগুলো।

তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি না যে কেউ এই পর্যায়ে তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য তাড়াহুড়ো করছে এবং তালেবানদের সেদিকে নজর রাখা উচিত।’

বিজ্ঞাপন

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘পাকিস্তানের উদ্দেশ্য ছিল আফগানিস্তানে শান্তি ও স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করা। আমরা আফগানদের পরামর্শ দেব, তাদের একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার থাকা উচিত। তালেবানদের প্রাথমিক বিবৃতিগুলো ইঙ্গিত দেয় যে, তারা এই ধারণার বিরোধী নয়, তাই আসুন দেখি কী হয়।’

মাহমুদ কুরেশি যুক্তরাষ্ট্রসহ অন্যান্য দেশগুলোকে আফগানিস্তানের জব্দ হওয়া অর্থ ছাড় দেওয়ার জোর তাগিদ দেন। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘আফগানিস্তানের অর্থ আফগানদের স্বার্থেই খরচ করা উচিত।’

বিজ্ঞাপন

উল্লেখ্য যে, গত ১৫ আগস্ট রাজধানী কাবুল দখলের মাধ্যমে আফগানিস্তানের গণতান্ত্রিক সরকার উৎখাত করে তালেবান। ওইদিন প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি দেশ ছেড়ে পালিয়ে যান। এর কয়েক সপ্তাহ পর গত ৭ সেপ্টেম্বর আফগানিস্তানে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠন করে তালেবান। উগ্রবাদী গোষ্ঠীটির অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত মোল্লা ওমরের ঘনিষ্ঠ সহযোগী মোল্লা হাসান আখুন্দকে সরকারের প্রধান হিসেবে মনোনীত করে শীর্ষ নেতৃত্ব। মোল্লা আখুন্দ প্রতিবেশী পাকিস্তানের ঘনিষ্ঠ বলেও পরিচিত।

তালেবানের সরকার গঠন প্রক্রিয়ায় চীন ও পাকিস্তানের প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ হস্তক্ষেপ রয়েছে বলেও মনে করছেন বিশ্লেষকরা। তালেবান সরকার গঠনের আগের দিন কাবুলে পাকিস্তান দূতাবাসের সামনে পাকিস্তান বিরোধী সমাবেশ করেন সাধারণ আফগানরা। তালেবান সরকার গঠনের পর ধারণা করা হয়েছিল প্রতিবেশী পাকিস্তান সবার আগে স্বীকৃতি দেবে। তবে তিন সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও এখনও কাবুলের নতুন কর্তৃপক্ষকে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেয়নি ইসলামাবাদ।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/আইই

বিজ্ঞাপন

Tags:

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন