বিজ্ঞাপন

জবির খেলার মাঠে রাতের আঁধারে ডিএসসিসির খনন কাজ

September 29, 2021 | 12:12 am

জবি প্রতিনিধি

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) একমাত্র খেলার মাঠে রাতের আঁধারে খনন কাজ চালাচ্ছে ডিএসসিসি (ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন)। এ নিয়ে জবি শিক্ষার্থীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

জানা যায়, ধূপখোলা মাঠের আয়তন প্রায় ৭ দশমিক ৪৭ একর এবং মাঠটি তিন ভাগে বিভক্ত। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঠ, ইস্ট অ্যান্ড ক্লাব খেলার মাঠ এবং সবার জন্য উন্মুক্ত একটি মাঠ। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ১৯৮২ সাল থেকে মাঠটি ব্যবহার করছে তারা।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন সূত্রে জানা যায়, ধূপখোলা মাঠ মেগা প্রজেক্টের মধ্যে রয়েছে। একটি বহুতল মার্কেট, খেলার মাঠ, হাঁটার ব্যবস্থা, ক্যাফেটেরিয়া ও পার্কিং স্থান করা হবে।

বিজ্ঞাপন

এদিকে ডিএসসিসির এই প্রজেক্টের কারণে একমাত্র খেলার মাঠ বেহাত হওয়ার ক্ষুব্ধ জবির সাবেক-বর্তমান শিক্ষার্থীরা। এই মাঠেই ২০২০ সালের ১১ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন। মাঠ রক্ষায় কয়েক দফা মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে শিক্ষার্থীরাও।

ধূপখোলা মাঠের আশপাশের মেসে থাকা কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাতে ধূপখোলা মাঠের জবি অংশে সীমানাপ্রাচীর তুলে ফেলে মাঠের সংস্কারের দায়িত্বে থাকা ডিএসসিসির ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান।

বিজ্ঞাপন

সিটি করপোরেশনের সহকারী প্রকৌশলী ও প্রজেক্টের দায়িত্বে থাকা হরিদাস বলেন, এখানে মাঠের উন্নয়নের কাজ হবে। তাই আমরা কাজ শুরু করছি।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অনুমতি নিয়েছেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা সিটি করপোরেশনের মাঠ।আমরা তাই কাজ করছি।

বিজ্ঞাপন

বিশ্ববিদ্যালয়ের রুটিন উপাচার্যের দায়িত্বে থাকা ট্রেজারার অধ্যাপক ড. কামালউদ্দিন আহমেদ সারাবাংলাকে বলেন, আমরা কিছুদিন আগেই ডিএসসিসির মেয়রের সঙ্গে দেখা করে বিষয়টি জানিয়েছি। এরপরও তারা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে রাতের আঁধারে সীমানা প্রাচীর সরিয়েছে। আমরা আবার মেয়রের দৃষ্টি আকর্ষণ করে চিঠি পাঠাচ্ছি। ইতোমধ্যে গেন্ডারিয়া থানায় আমরা জিডি করেছি। পরবর্তী আইনি পদক্ষেপ উপাচার্য মহোদয় দেশে ফেরার পর নেওয়া হবে।

সারাবাংলা/এসএসএ

বিজ্ঞাপন

Tags:

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন